• শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ২১ ফাল্গুন ১৪২৭  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নরসিংদিতে কৃষকের ধানী জমি ইট ভাটায় বিক্রির অভিযোগ

  অধিকার ডেস্ক

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫:৪৩
সংবাদ সম্মেলন
নরসিংদিতে কৃষকের ধানী জমি ইট ভাটায় বিক্রির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন (ছবি : সংগৃহীত)

বাংলাদেশ সরকার ৫২৮ কোটি ১৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নদী পুনঃ খনন প্রকল্প হাতে নিয়েছে। যেখানে সরকারের উদ্দেশ্য নদীর স্থান নদীকে ফিরিয়ে দেওয়া। কিন্তু সেই সুযোগে একটি প্রভাবশালী মহল সরকারের এই মহত উদ্দেশ্যকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করে নিজেদের স্বার্থ রক্ষায় কাজ করে যাচ্ছে। নদী পুনঃ খননের নামে কৃষকের ধানী জমির জোর পূর্বক দখল এবং স্থানীয় ইট ভাটায় বিক্রি করে কৃষকদের নিঃস্ব করে দেওয়ার পরিকল্পনায় নেমেছে।

শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে বাংলাদেশে ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন স্থানীয় কৃষকরার।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত এলাকাবাসী প্রতিনিধি হয়ে আসা রাবেয়া বসরী অভিযোগ করে বলেন, নদী পুনঃ খনন প্রকল্পে নরসিংদী জেলার পলাশ, শিবপুর থানাধীন ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক শত শত কৃষক পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছে। পথে বসার উপায় হয়ে দাড়িয়েছে। শুধুই তাই নয় প্রতি মুহূর্তে জীবন হারানোর শঙ্কায় আজ আমরা ঘুরছি।

তিনি বলেন, পলাশ ও শিবপুর থানাধীন মৌজার আলিনগর, চরসিন্দুর, ব্রজেরকান্দী এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের নদী পুনঃ খনন প্রকল্প চলমান রয়েছে। যেখানে প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকার কয়েক লাখ মানুষের কৃষি এবং ধানী জমি রয়েছে। পূর্ব পুরুষের কেনা সম্পত্তি যা সরকারের সি এস, আর এস, এস এ দলিলে নথী ভুক্ত। সরকারের খাজনা পরিশোধ করার পরও সেই জমি থেকে মাটি খননের কাজ চলমান রয়েছ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নদীর সীমানার মধ্যে আমাদের জমি না পড়লেও। জোর পূর্বক ঠিকারদারি কোম্পানি নদীর নকশা বহির্ভুত জমি থেকে মাটি তুলে নিচ্ছে।

গত কয়েক বছর ধরে নদী পুনঃ খননের নামে প্রায় কয়েক লাখ কৃষকের ধানী জমির মাটি ‍তুলে নিয়ে গেছে। কৃষকের ফসল বাবদ যে আর্থিক ক্ষতি হয়েছে যার বাজার মূল্য প্রায় ৫০ থেকে ৬০ কোটি টাকার বেশি। এর বাইরেও শত শত কোটি টাকার মাটি কেটে নিয়ে গেছে প্রভাবশালী মাটি খেকো সস্ত্রাসী বাহিনী। যার মধ্য দিয়ে পুরো গ্রামে এক ত্রামের রাজত্ব কায়েম করেছে সন্ত্রাসীরা।

এই খনন কাজে নিয়োজিত মেসার্স ফিউচার ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের স্বত্ত্বাধিকারী মো: খালেদ হোসেন, স্থানীয় ভূমিদস্যু ও এলাকার প্রভাবশালী মহলের মাধ্যমে নদীর সীমানার বাহিরে গিয়ে স্থানীয় কৃষকদের এই জমি মাটি রাতের আঁধারে ভেকু দিয়ে কেটে ইট ভাটায় বিক্রি করে দিচ্ছে। ফলে সেখানে এখন আর ফসল হওয়ার সুযোগ নেই। পুরো এলকা এখন খনন করতে করতে বিলীন হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। রাস্তায় বসেছে স্থানীয় কৃষক।

স্থানীয়রা বাঁধা দিতে গেলে প্রতিনিয়ত নির্যাতনের মুখোমুখি হতে হয়েছে, যারাই প্রতিবাদ করতে গিয়েছে তাদেরই নির্যাতন করেছে ভুমিদস্যু খালেদ। এমনকি প্রতিনিয়ত হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে তারা। এখন আমাদের প্রতিটি মুহূর্ত কাটে ভয় আর আতংঙ্কে।

এসব অভিযোগ নিয়ে জেলা প্রশাসন, স্থানীয় থানা, উপজেলা পরিষদের কর্যালয়ে দফায় দফায় যোগাযোগ করা হলেও এর কোন ব্যবস্থা বা সহযোগীতা করেনি।

এই ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে, সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষীদের অবিলম্বে আইনের আওতায় আনা হোক। যার মধ্যদিয়ে কৃষকের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে বলে মনে করেন তিনি৷

সরকারের সকল কাজে সহযোগিতার করার অঙ্গীকার করে স্থানীয়দের স্বৈরাচারী ভুমিদস্যুদের হাত থেকে রক্ষা করার পাশাপাশি, আমাদের জমির যথাযত ক্ষতিপূরণ জমির মালিকদের বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য প্রধামন্ত্রীর কাছে সাহায্য চেয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে এছাড়াও কলেজের শিক্ষার্থী এবং ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা উপস্থিত ছিলেন।

ওডি

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড