• সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

যশোরে হত্যা মামলায় ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

  গোলাম মোস্তফা, যশোর

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২০:৫৯
ছবি : প্রতীকী

যশোরের মণিরামপুরের মোটরসাইকেল চালক ইস্রাফিল হোসেন হত্যার দায়ে তিনজনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল জজ (জেলা জজ) আদালতের বিচারক সামছুল হক এক রায়ে এ আদেশ দিয়েছেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলো, যশোরের সদর উপজেলার ঘুনি মাঠপাড়া গ্রামের মৃত সেকেন্দার আলীর ছেলে ইউনুছ আলী শেখ, অভয়নগরের শরণখোলা গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদিন মোল্লার ছেলে ইব্রাহিম মোল্লা ও কেশবপুরের ভাল্লুকঘর গ্রামের মৃত ইয়াকুব আলী খানের ছেলে ইউনুছ আলী খান।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, মণিরামপুর জয়পুর গ্রামের ইস্রাফিল হোসেন ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। ২০০৯ সালের ২১ ডিসেম্বর দুপুর ২ টার দিকে তিনি মণিরামপুর দোলখোলা মোড়ে ভাড়ার জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এর মধ্যে অপরিচিত এক ব্যক্তি মোটরসাইকেল ভাড়া নিয়ে যশোর সদরের দেয়াপাড়া ঘুনি গ্রামের নিয়ে আসে। এরপর ইস্রাফিল হোসেন বাড়ি না ফেরায় স্বজনরা খোঁজাখুজি করে উদ্ধারে ব্যর্থ হয়। পরদিন স্বজনের দোলখোল মোড়ে গিয়ে খোঁজখবর নিয়ে যশোর সদরের দেয়াপাড়া ঘুনি গ্রামের ইউনুছের বাড়ি যায়। ইউনুছের স্ত্রী তাদের জানিয়েছিল মোটরসাইকেল চালক দুপুরে খাওয়ার পর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেছে। অবশেষে ইস্রাফিল হোসেনকে উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে তার ছেলে ইউসুফ আলী বাদী হয়ে ইউনুছ, ইব্রাহিম ও মুজিবরকে আসামি করে মণিরামপুর থানায় হত্যা মামলা করেন।

মামলার তদন্তকালে ২০১০ সালের ২৩ জানুয়ারি হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ইউনুছ শেখ ও ইব্রাহিমকে আটক করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। তারা হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেয়। তারা জানিয়েছিল, দীর্ঘদিন তারা একসাথে জেল খেটেছে। জেল থেকে বের হয়ে টাকার জোগাড় করতে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী ইস্রাফিলকে ভাড়া নিয়ে ঘুনি গ্রামের ইউনুসের বাড়ি আসে। সেখানে তারা চারজন দুপুরে খাবার খায়। খাবারের মধ্যে চালক ইস্রাফিলকে চেতনানাশক খাওয়ায়। পরে অসুস্থ চালক ইস্রাফিলকে নিয়ে মুচি খালের পাড়ে নিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর খালের মধ্যে পুতে রেখে পালিয়ে যায়। এ দুইজনের স্বীকারোক্তিতে অপর আসামি ইউনুছ খানকে আটক করা হয়। সেও হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেয়।

আসামিদের দেওয়া স্বীকারোক্তি জবানবন্দি ও সাক্ষীদের বক্তব্যে হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়ায় ওই তিনজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নাসির উদ্দিন। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ না পাওয়ায় মজিবর রহমানকে অব্যাহতির আবেদন করা হয় চার্জশিটে। এ মামলার দীর্ঘ সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে ওই তিন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক প্রত্যেককে মৃত্যুদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা করে জরিমানার আদেশ দিয়েছেন। দণ্ডপ্রাপ্ত তিনজন জামিনে মুক্তি পেয়ে পলাতক রয়েছে।

স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট সাজ্জাদ মোস্তফা রাজা জানিয়েছেন, এ মামলায় নিহতের পরিবার ন্যায়বিচার পেয়েছে। সাক্ষীরা আসামিদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের যথাযথ জবানবন্দি দিয়েছেন। রাষ্ট্রপক্ষ অভিযোগ প্রমাণ করতে সক্ষম হওয়ায় বিচারক আসামিদের সর্বোচ্চ সাজা দিয়েছেন।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড