• মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মোটরসাইকেল চুরির অপবাদে জোরপূর্বক টাকা আদায়ের অভিযোগ

  মনির উদ্দিন, টঙ্গী (গাজীপুর)

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২১:২৬
ছবি : দৈনিক অধিকার

গাজীপুরের টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের পুরাতন ভবনের ভিতর থেকে চুরি যাওয়া মোটরসাইকেলকে কেন্দ্র করে হাসপাতালের আউট সোর্সিং কর্মচারী (ক্লিনার) তৌহিদুল ইসলাম হৃদয় ও মাসুদ রানাসহ তার সহযোগীরা একই হাসপাতালের অপর কর্মচারী রেনুজা বেগমের ছেলেকে চোর সাজিয়ে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত ১০ জানুয়ারি হাসপাতালের পুরাতন ভবনের নিচ থেকে হাসপাতালের আউট সোসিং কর্মচারী মাসুদ রানার (টিভিএস এপ্যাচি আরটিআর মডেল নং ২০১৯, গাড়ি নং ঢাকা মেট্রো-২৯৩১৪৪) একটি মোটরসাইকেল চুরি হয়। এ ব্যাপারে মো. মাসুদ রানা বাদী হয়ে ওই দিন সন্ধ্যায় টঙ্গী পূর্ব থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পরে মাসুদ রানা ও তৌহিদুল ইসলাম হৃদয়সহ একদল লোক লাঠিসোটা নিয়ে রেনুজার বাসায় গিয়ে রেনুজা ও তার পরিবারের লোকজনের প্রতি চড়াও হয় এবং রেনুজা বেগমকে বলে, ‘তোর ছেলে বাবু মোটরসাইকেলটি চুরি করেছে। রাত ৮টার মধ্যে মোটরসাইকেল বের করে দিতে হবে নয়তো বাইকের মূল্য বাবদ ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দিতে হবে’ অন্যথায় তোর ছেলেকে মারধরসহ বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি দেখায়।

এ অবস্থায় বাইকের মালিক মাসুদ রানা ১১ জানুয়ারি মোটরসাইকেলের সন্ধান পায় এবং মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক বরাবর একটি লিখি আপসনামা প্রদান করে দেন। সেখানে মাসুদ রানা স্বীকার করে বলেন, চুরি যাওয়া আমার মোটরসাইকেলটির সন্ধান পাই এবং উদ্ধার করি। আমার সাথে আরও লোকজন উপস্থিত ছিল। এ ব্যাপারে আমার কারও উপর কোনো অভিযোগ নেই। সকল অভিযোগ আমি প্রত্যাহার করলাম।

এদিকে রেনুজা বেগম কর্তৃক থানায় দায়ের করা অভিযোগসূত্রে জানা যায়, হাসপাতালের আউট সোসিং কর্মচারী ও ওয়ার্ড মাষ্টার তৌহিদুল ইসলাম হৃদয় ও মাসুদ রানাসহ অন্যান্যরা মিলে কৌশলে ১৩ জানুয়ারি রেনুজা বেগমের বাসায় গিয়ে হুমকি প্রদান করে জোরপূর্বক ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা নিয়ে যায়। উক্ত চুরি যাওয়া বাইকের কাগজপত্র এবং একটি আপসনামা আমার নিকট দেয়। আমি আপসনামা পড়ে জানতে পারি গাড়িটি উদ্ধার হয়েছে। আমি তৎক্ষণাত তাদের নিকট আমার টাকা ফেরত চাই তারা নানা তালবাহানা এবং হুমকি প্রদান করে চলে যায়। তাই আমি আমার আত্বীয়-স্বজনের সাথে পরামর্শ করে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি টঙ্গী পূর্ব থানায় টাকা উদ্ধারের জন্য একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি।

বাইকের মালিক মাসুদ রানা বলেন, আমি এসব ব্যাপারে কিছু জানি না। হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার এবং তত্ত্বাবধায়ক স্যারের পরামর্শক্রমে আমি একটি আপসনামা দিয়েছি। তবে টাকা বা মোটরসাইকেল কোনোটাই এখনও আমি পাইনি।

এ বিষয়ে জানতে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. পারভেজের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি।

হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. জাহাঙ্গীর আলমের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমার কাছে কেউ কোনো লিখিত অভিযোগ করেনি। আমি শুনেছি বিষয়টির মীমাংসা হয়েছে। এ ব্যাপারে ডা. পারভেজ বলতে পারবেন।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড