• বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২ ফাল্গুন ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ভৈরবে প্রেমিকাসহ দুইজনের মৃত্যুদণ্ড

  নাজির আহমেদ, ভৈরব

২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:৫১
ছবি : দৈনিক অধিকার

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে চাঞ্চল্যকর নবী হোসেন হত্যা মামলায় এক নারীসহ দুইজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (২৫ জানুয়ারি) সকালে কিশোরগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত ১-এর বিচারক মুহাম্মদ আবদুর রহিম এই রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, নিহত নবী হোসেনের সাবেক প্রেমিকা সুমনা বেগম ওরফে শিলা (৩০) ও সুমনার সাবেক স্বামী নজরুল ইসলাম (৩৮)। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে দুই লাখ টাকা করে আর্থিক দণ্ড দেয়া হয়েছে। তবে দন্ডপ্রাপ্ত আসামি সুমনা পলাতক রয়েছেন। রায় ঘোষণার সময় মামলার অন্য তিন আসামি উপস্থিত ছিলেন। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মামলার অপর দুই আসামি আশরাফুল রাসেল ও মো.শরীফ মিয়াকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

মামলার বিবরণে জানা যায়, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি নজরুলের সঙ্গে সুমনা বেগমের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পরে তাদের দু’জনের বিয়ে হলেও ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। ভৈরব পৌর শহরের ভৈরবপুর উত্তরপাড়া গ্রামের কবিরাজ নবী হোসেনের সঙ্গে সুমনা পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে তুলে। সুমনা শহরের চন্ডিবেড় দক্ষিণপাড়া মহল্লায় একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন। কিন্তু আবার নজরুল ইসলামের সঙ্গে সুমনার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠলে এ নিয়ে নবী হোসেনের সঙ্গে সুমনার সম্পর্কের অবনতি হয়। ফলে পথের কাটা সরাতে ২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর রাতে তার ভাড়া বাসায় নবী হোসেনকে সুমনা ফোনে ডেকে নিয়ে যায়। গভীর রাতে সুমনার বাসায় নবী হোসেনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলাকেটে হত্যা করা হয়। পরে লাশ ৬ টুকরা করে ভৈরবের কয়েকটি স্থানে ফেলে রাখা হয়।

ঘটনার দু'দিন পর ২৩ ডিসেম্বর পুলিশ নিহতের মৃতদেহের একাংশ উদ্ধার করে। ২৫ মৃতদেহের বাকি অংশ উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া একাংশ নবী হোসেনের বলে সনাক্ত করে তার স্ত্রী বিলকিছ বেগম। পরে পুলিশ নিহত নবী হোসেনের খন্ডিত বাকী টুকরোগুলো উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। একই দিন নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে ভৈরব থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

পরে পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সমুনার সাবেক স্বামী নজরুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। পরে একে একে হত্যাকান্ডের কারণ এবং হত্যাকান্ডর সঙ্গে জড়িতদের নাম জানতে পারে। এক সময় মামলাটির তদন্তে নামে সিআইডি। দীর্ঘ তদন্ত শেষে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের এসআই মো. নজরুল ইসলাম ২০১৬ সালের ২১ জানুয়ারি চার জনের নামে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। দীর্ঘ শুনানি শেষে আজ রায় ঘোষণা করেন আদালত।

বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. আবু সাঈদ ইমাম বলেন, রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। তবে রায়ে সংক্ষুব্ধ আসামি পক্ষ। রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে বলে জানান তারা।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড