• বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সম্পত্তির লোভে বাবাকে মাদকাসক্ত সাজিয়ে আটকে রাখে সন্তানরা

  সারাদেশ ডেস্ক

১৯ নভেম্বর ২০২০, ১৬:৫১
অধিকার
ছবি : সংগৃহীত

কিশোরগঞ্জের ভৈরব পৌর শহরের গাছতলাঘাট এলাকায় সম্পত্তি লিখে না দেয়ায় হাজী সিদ্দিক মিয়াকে ৫ মাস ধরে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে আটকে রাখার অভিযোগ উঠেছে তার স্ত্রী ও দুই ছেলের বিরুদ্ধে। এ ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ আলী সোহাগ তাকে মাদক নিরাময় কেন্দ্র থেকে উদ্ধার করেন।

ভুক্তভোগী হাজী সিদ্দিক মিয়া বাদী হয়ে স্ত্রী লতিফা বেগম, ছেলে মামুন ও রুমান মিয়া ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রত্যয় মাদক নিরাময় কেন্দ্রের পরিচালক জামাল মিয়ার বিরুদ্ধে গত ১১ নভেম্বর কিশোরগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন। আদালত মামলাটি কিশোরগঞ্জের সিআইডিকে তদন্ত করতে নির্দেশ দেয়।

হাজী সিদ্দিক মিয়া অভিযোগে জানান, তিনি ভৈরবের কমলপুর গাছতলাঘাট এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা। এক সময় জুট মিলে শ্রমিকের কাজ করতেন। পরে বিদেশ চলে যান। তিনি এলাকায় একটি ৪ তলা বাড়ি করে স্ত্রী, সন্তান নিয়ে বসবাস করছিলেন। দুই ছেলেকে ইতালি পাঠিয়েছেন এবং নিজে এখন বাড়ির নিচতলায় অটোমেটিক ড্রাই ক্লিনার্সের ব্যবসা দিয়েছেন। তিনি তার ভাতিজাকে ২ শতক জমি (আনুমানিক মূল্য ৯০ লাখ টাকা) দান করার কথা বললে স্ত্রী ও ছেলেদের সঙ্গে তার বিরোধ শুরু হয়।

গত ২২ মে রাতে তার স্ত্রী নিজের লোকজন নিয়ে তাকে জোরপূর্বক ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রত্যয় নামে একটি মাদক নিরাময় কেন্দ্রে নিয়ে আটকে রাখেন। সেখানে তারা নিরাময় কেন্দ্রের মালিকের সহযোগীতায় সিদ্দিক মিয়াকে তার সব সম্পদ স্ত্রী ছেলেদের নামে লিখে দিতে চাপ সৃষ্টি করেন। তিনি রাজি না হওয়ায় তাকে ৫ মাস ধরে নিরাময় কেন্দ্রে আটকে রাখা হয়। পরে স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর সোহাগ ও সাবেক কাউন্সিলর আরিফুল ইসলামের সহযোগীতায় গত ৪ নভেম্বর নিরাময় কেন্দ্র থেকে ছাড়া পান।

গত ১১ নভেম্বর হাজী সিদ্দিক মিয়া কিশোরগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত নং-২ এ স্ত্রী, দুই ছেলে ও নিরাময় কেন্দ্রের পরিচালকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে।

হাজী সিদ্দিক মিয়া আরো জানান, তার স্ত্রী সন্তানরা তাকে মাদক সেবনকারী সাজিয়ে প্রত্যয় নিরাময় কেন্দ্রে আটক করে রাখেন। এতে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ক্ষতিসহ তাকে সমাজে হেয় করা হয়েছে। বর্তমানে তিনি বাসায় থাকলেও আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন।

এলাকাবাসী জানান, হাজী সিদ্দিক মিয়াকে তার পরিবারের লোকজন সম্পত্তির জন্য মাদক নিরাময় কেন্দ্রে আটক রেখেছেন তা কেউ জানতেন না। এলাকায় প্রচার করা হয়েছে তিনি তাবলিগ-জামাতে গিয়েছেন।

এলাকার কাউন্সিলর মোহাম্মদ আলী সোহাগ জানান, এটা তাদের পারিবারিক হলেও বিষয়টি অমানবিক। পিতার সম্পত্তি স্ত্রী সন্তানরা পাবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু তাকে পাগল আখ্যায়িত করে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে আটক রেখে সম্পত্তি লিখে নেয়ার চেষ্টা করা বড় অপরাধ। এ খবর অবগত হওয়ার পর আমি নিজে দায়িত্বে তাকে নিরাময় কেন্দ্র থেকে উদ্ধার করে বাসায় পৌঁছে দিয়েছি।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801703790747, +8801721978664, 02-9110584 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড