• বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাঁশখালীতে ইউএনও পরিচয়ে ব্যবসায়ীদের সাথে প্রতারণার চেষ্টা

  বাঁশখালী প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম

০৬ অক্টোবর ২০২০, ১৮:১২
ছবি : জেলার ম্যাপ

বাঁশখালীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পরিচয়ে এক প্রতারকের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা দাবি করার অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার (৫ অক্টোবর) সন্ধ্যা ৭ টা ১৭ মিনিটে ০১৭১৫৭৩৩৯৩৫ নাম্বার থেকে ফোন করে নিজেকে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন ব্যবসায়ীদেরকে দোকানের লাইসেন্স, বিআরটিসির অনুমোদন নাই বলে অবৈধভাবে চাঁদা দাবির অভিযোগ তুলে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।

উপজেলার শিলকুপ ইউনিয়নের টাইমবাজার 'বাবা মায়ের দোয়া বেকারি'র স্বত্বাধিকারী মো. রেজাউল করিম জানান, সোমবার সন্ধ্যায় একটি অচেনা মোবাইল নম্বর থেকে কল আসে। কলটি রিসিভ করা মাত্রই অপর প্রান্ত থেকে একজন ব্যক্তি নিজেকে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পরিচয়ে কথা শুরু করে।

কথিত ইউএনও উল্লেখিত মোবাইল নম্বর থেকে মুঠোফোনে আমাকে বলেন, 'আমি বাঁশখালীর ইউএনও বলছি। আগামী কাল মঙ্গলবার আমরা র‍্যাব, পুলিশ, সাংবাদিকসহ সবাই অভিযানে যাচ্ছি। আপনার দোকানের লিস্ট আমাদের কাছে আছে। আপনার দোকানের লাইসেন্স, বিআরটিসির লাইসেন্স নাই। আপনি যদি আমাদের বিকাশ/নগদ/রকেটে আজ রাতেই ৩০ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেন আমরা আপনার দোকানে অভিযান পরিচালনা করতে যাব না। অন্যথায় আপনাকে অর্ধলক্ষ টাকা জরিমানা করবো।'

শিলকুপ ইউপির দফাদার আশরাফ আলী জানান, একই নাম্বার থেকে বাঁশখালীর ইউএনও পরিচয় দিয়ে আমাকে মুঠোফোনে বলেন, 'আপনি টাইম বাজার বাবা মায়ের দোয়া বেকারির মালিককে ফোন করে বলেন আমরা আগামীকাল অভিযান পরিচালনা করতে আসছি।'

কিছুক্ষণ পর কথিত ইউএনও মুঠোফোনের মাধ্যমে টাইমবাজারস্থ 'আমানত বেকারির স্বত্বাধিকারী সোহেলকে তার ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে ফোন করে বলেন, শিলকুপ টাইমবাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা হবে। ভ্রাম্যমাণ আদালত থেকে নিজেকে মুক্ত করতে চাইলে ওই ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা দাবি করেন কথিত ইউএনও।'

ইউএনও`র ভয়ে ওই দুই ব্যবসায়ী টাকার সন্ধানে এদিক ওদিক ছোটাছুটি শুরু করেন। পরে স্থানীয়দের সাথে কথিত ইউএনওর চাঁদা দাবির বিষয়টি শেয়ার করলে স্থানীয়রা টাকা না দিতে পরামর্শ দেন। নম্বর দেখে তারা নিশ্চিত করে বলেন, ভুয়া ইউএনও পরিচয় দিয়ে প্রতারণার চেষ্টা করেছে।

এ বিষয়ে জানতে চেয়ে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোমেনা আক্তারকে ফোন করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। পরে ইউএনওর এম এল এস হারাধন জানান, 'উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোমেনা আক্তার বাঁশখালীতে নেই। তিনি চট্টগ্রামে একটি প্রোগ্রামে আছেন। তাছাড়া গতকালকে কথিত ইউএনওর চাঁদা দাবির বিষয়টি চৌকিদার আশরাফ পরে আমাকে জানিয়েছিল। এভাবে আরও কয়েকবার ভুয়া পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন নম্বর থেকে চাঁদা দাবির বিষয়ে উপজেলা নির্বাহীর অফিসার অবগত আছেন।

বাঁশখালী থানা পুলিশ অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল করিম মজুমদার জানান, 'করোনাকে পুঁজি করে অনেকেই এভাবে সমাজের গুরুত্বপূর্ণ মানুষের পরিচয় দিয়ে প্রতারণা করে আসছে। এ বিষয়ে সকলকে সতর্ক থাকতে হবে। কথিত ইউএনওর সঠিক তথ্যানুসন্ধানে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, 'প্রতারকরা নানা কৌশলে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করছে। আমাদের সকলকে সতর্ক হওয়া উচিৎ।'

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801703790747, +8801721978664, 02-9110584 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড