• বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

হাত-পা বেঁধে ছাত্রকে মারধর, শিক্ষকের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

  অধিকার ডেস্ক

১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২০:৪৮
সিসিটিভি ফুটেজ
হাত-পা বেঁধে ছাত্রকে মারধরের সিসিটিভি ফুটেজ (ছবি : দৈনিক অধিকার)

পড়ালেখায় অমনোযোগী হওয়ায় ছাত্র রাকিবুল ইসলামের হাত-পা বেঁধে তাকে মারধর করেছেন সাভারের আশুলিয়ার মধুপুর এলাকার জাবালে নূর মাদরাসার শিক্ষক ইব্রাহীম। পাশাপাশি রাকিবুলকে মারধরের পর পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করায় ওই মাদরাসার অপর শিক্ষার্থী মাহফুজুর রহমানকেও হাত-পা বেঁধে মারধর করেন অভিযুক্ত শিক্ষক।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) ঢাকার সিনিয়র চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাজীব আহসানের আদালতে শিক্ষক ইব্রাহীম ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে একথা জানিয়েছেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

জবানবন্দিতে মাদরাসার শিক্ষক ইব্রাহীম বলেন, ‘আমি জাবালে নূর মাদরাসার শিক্ষক। মাদরাসার ছাত্র রাকিবুল ইসলাম দুষ্টু প্রকৃতির ছিল। সে ইতোমধ্যে মাদরাসা থেকে দুবার পালিয়ে গেছে। সে পড়ালেখায় অমনোযোগী ও দুষ্টুমি করত। এর জের হিসেবে ১১ সেপ্টেম্বর তাকে হাত-পা বেঁধে মারধর করি। তাকে মারার পর মাহফুজুর রহমান নামে আরেক ছাত্র পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করে। তখন তাকেও হাত-পা বেঁধে মারধর করি। ১২ সেপ্টেম্বর রাকিবুলের ফুফু তাকে মাদরাসা থেকে নিয়ে যান। ১৪ সেপ্টেম্বর তাদের মারধরের বিষয়টি এলাকার লোকজন জেনে যায়। তখন তারা এসে আমাকে গণধোলাই দেয়। এরপর আমাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ১৫ সেপ্টেম্বর হাসপাতাল থেকে পুলিশ আমাকে গ্রেপ্তার করেন।’

এর আগে সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সকালে ফেসবুকে দুই মাদরাসাছাত্রকে মারধরের ওই ভিডিও ভাইরাল হলে দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আশুলিয়া থানা পুলিশ। পরে সন্ধ্যায় অভিযুক্ত মাদরাসা শিক্ষক ইব্রাহীমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেপ্তার শিক্ষক হাফেজ ইব্রাহিম কুমিল্লা জেলার হুমনা থানার দুর্গাপুর গ্রামের আতাউর রহমানের ছেলে।

ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর আনোয়ার কবির বাবুল গ্রেপ্তার শিক্ষকের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘আজ ইব্রাহীমকে আদালতে হাজির করে আশুলিয়া থানা পুলিশ। সে স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দিতে সম্মত হওয়ায় তা রেকর্ড করার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।’

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আশুলিয়ার শ্রীপুরের মধুপুর জাবালে নূর মাদরাসার ছাত্র রাকিবুল ইসলাম (১৩) এবং মাহফুজুর রহমান (১৩) নামের দুই ছাত্রকে অন্য শিক্ষার্থীদের সামনে বেত দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেন মাদরাসার শিক্ষক ইব্রাহীম। মারধরের ঘটনায় মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) আশুলিয়া থানায় একটি মামলা করেন রাকিবুলের বাবা এমদাদুল ইসলাম।

আরও পড়ুন : গাইবান্ধায় মাদক মামলায় এক ব্যক্তির ৭ বছরের কারাদণ্ড

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া সিসিটিভির একটি ভিডিওতে দেখা যায়, মাদরাসার একটি কক্ষে অভিযুক্ত শিক্ষক ইব্রাহিম হাতে বেত নিয়ে শিশু শিক্ষার্থী রাকিবুল ইসলামকে পেটাচ্ছেন। একপর্যায়ে শিশু রাকিবুল ওই শিক্ষকের পা ধরলেও তিনি ক্রমাগত পেটাতে থাকেন। একই সময় পাশেই মাহফুজ নামের অপর শিশুছাত্রকে মারধরের পর দড়ি দিয়ে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় মেজেতে পড়ে থাকতে দেখা যায়।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801721978664

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড