• বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

  জামালপুর প্রতিনিধি

২৭ জুলাই ২০২০, ১৪:৪৩
বন্যা কবলিত এলাকা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

যমুনার পানি বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ১০৫ সেন্টি মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। উজানের পাহাড়ী ঢল আর ভারী বৃষ্টিতে জামালপুরে যমুনার পানি বেড়ে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অবনতি ঘটেছে।

জেলার সাত উপজেলার ৮ পৌরসভা ও ৬০টি ইউনিয়নের ১০ লাখ মানুষ পানি বন্দি। বন্যার পানিতে র্দীঘ দিন আটকে থাকায় কবলিত এলাকায় মানুষের তীব্র খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে।

যমুনা নদীর পানি সোমবার সকালে ৭ সেন্টিমিটার কমে বিপৎসীমার ১০৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জেলার ৫টি নদ-নদীর ও শাখা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। সব মিলিয়ে বন্যা পরিস্থিতি অবনতি ঘটেছে।

নতুন করে নিম্নাঞ্চল ও লোকলয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করায় মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই। বিশেষ করে দীর্ঘ ১মাস ১দিন বন্যার পানি থাকায় দুর্গত এলাকার মানুষের খাদ্য সংকট সহ নানা সমস্যার মধ্যে পড়তে হচ্ছে। এছাড়াও সড়কে যোগাযোগ সর্ম্পূন বন্ধ এবং ফসলের মাঠ, গো চারণ ভুমি, বসতবাড়ী,গ্রামীন হাট বাজার পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে।যার ফলে মানুষের অর্থনীতিতে বড় একটি ধাক্কা লাগছে ।

অন্যদিকে দূর্র্গত এলাকায় মানুষ কোন মত উচুঁ জায়গায় আশ্রয় নিলেও অধিকাংশ পরিবার ত্রাণের আওয়াতায় আসেনি। গো খাদ্যের অভাব ও গরু চুরির আতঙ্ক নিয়ে দুর্যোগের সাথে লড়াই করেই দিনপাড় করছে বানভাসিরা।

বন্যার এবং করোনা দীর্ঘ সময়ের মহামারীতে মানুষ কর্মহারা হয়ে পরিবার নিয়ে অতি কষ্টে দিন পার করছে। কৃষকের মুখে হাসির প্রদীপ একটু একটু করে নিভে যাচ্ছে। গোলাভরা ধান বানের পানিতে ভিজে নষ্ট হয়েছে ,বন্যার পানিতে ভেসে গেছে পুকুরে মাছ ।গৃহপালিত পশু খাদ্যের অভাবে চোখের সামনে হাড্ডিসার হচ্ছে।

কোথাও উঁচু স্থান না থাকায় পশুপাখী নিয়ে নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছে কৃষকেরা। চারিদিকে বানের পানি ফুলে ফেঁপে উঠেছে। সেই সাথে তীব্র পানির তোড়ে প্রায় ১৫ হাজার বসতবাড়ী, গরুর গোয়াল ঘর ,বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যমুনা নদীতে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে । অনেক পরিবার এখন গৃহহারা হয়ে কোন মত আশ্রয় নিলেও খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে । জেলা ত্রাণ ওপূর্নবাসন কর্মকর্তা নায়েব আলী জানান, জেলায় নতুন করে নগদ ৮ লাখ টাকা ও ২শ মেট্রিক টন চাল , ৪ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ করা হয়েছে। এ নিয়ে বন্যায় দুর্গতদের মাঝে ১২৮৪ মেট্রিকটন চাল, ৩৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও ১১ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হচ্ছে ।

বন্যা কবলিত এলাকা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

জামালপুরের পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী মো. আবু সাঈদ জানিয়েছে জুলাই মাসে আপাতত পানি কমার কোন সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না । উজানের ও পাহাড়ী এলাকায় আরো একটি বড় বৃষ্টি পাত হতে পারে ফলে একটু পানি কমে আবারো বৃদ্ধি পাবার অশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হক জানায়, বর্ন্যাদের মাঝে পর্যাপ্ত ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে। ত্রাণ পাবার যোগ্য ব্যাক্তি কেউ বাদ পড়বে না । জেলা প্রসানেরর পক্ষ থেকে প্রতিদিন দুর্গদের ৪হাজার পিস তৈরি করা রুটি সাথে গুড় দিয়ে যাচ্ছি । এ ছাড়াও আশ্রয় কেন্দ্রে রান্না করা খিচুঁরী বিতরণ হচ্ছে। আমাদের কাছে পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুদ আছে ।

জামালপুর পুলিশ সুপার মোঃ দেলোয়ায় হোসেন জানানা, দেশে বর্তমানের দুটি মহামারী চলছে, জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ত্রান বিতরণসহ বন্যা কবলিত দূর্গম চরাঞ্চলে নৌ টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে যাতে কোন অপ্রতিকর ঘটনা দুস্কৃতিকারী ঘটাতে না পারে ।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801721978664

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড