• বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ২৪ আষাঢ় ১৪২৭  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত ব্যক্তি মারা গেছেন

বাবাকে হারিয়ে খোকসার হাসি-খুশির মুখে নেই হাসি!

পাল্টাপাল্টি মামলা, আটক ৬, অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন

  মনিরুল ইসলাম মনি

৩১ মে ২০২০, ১৯:৪৭
হাসি আর খুশি
মায়ের সঙ্গে দুই বোন হাসি আর খুশি (ছবি : দৈনিক অধিকার)

কুষ্টিয়ার খোকসার শিমুলিয়া ইউনিয়নের একটি শান্ত গ্রাম- মানিকাট। প্রাকৃতিকভাবে শান্ত হলেও এই গ্রামটির রাজনৈতিক ভাবে চরম উতপ্ত। স্থানীয় আশরাফ মেম্বার ও আবু দাউদ চাঁদ গ্রুপের ক্ষমতার দ্বন্দ্ব প্রায় এক দশক ধরেই। আর এই দ্বন্দ্বের নির্মম বলি নিরীহ কাঠমিস্ত্রি আব্দুর রাজ্জাক প্রামাণিক।

শুক্রবার (২৯ মে) জুমার নামাজ শেষ করে মসজিদ থেকে বের হতেই মানিকাট গ্রামের আশরাফ মেম্বার সমর্থিতদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হোন কাঠমিস্ত্রি আব্দুর রাজ্জাক। পরদিন দুপুরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। তিনি গ্রামের লুৎফর প্রামাণিকের ছেলে।

সংঘর্ষে নিহত আব্দুর রাজ্জাক প্রামাণিক (ফাইল ছবি)

ওইদিনই দৈনিক অধিকারকে মারা যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন খোকসা থানার ওসি তদন্ত ইদ্রিস আলী।

রবিবার (৩১ মে) সকালে নিহত আব্দুর রাজ্জাকের খুপরি (টিনের ছাপড়া) বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়- তার স্ত্রী পলি খাতুনের পাশে অবুঝ দুই শিশু সন্তান। ওদের নাম হাসি আর খুশি। একই দিনে পৃথিবীর আলো দেখতে পেয়েছিল ওরা। পাশের মানিকাট সরকারি প্রাথমিক স্কুলের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী ওরা। বাস্তবতাকে ঠিকঠাক না বুঝলেও তাদের বাবার শূন্যতাকে ঠিকমতোই আঁচ করতে পেরেছে অবুঝ এই শিশু দুটি।

অন্যদিনগুলোতে তারা নামের মতোই চঞ্চল থাকলেও এদিনটিতে তাদের চোখ-মুখের বৈশিষ্ট্য ছিল সম্পূর্ণই বিপরীত। মায়ের কান্না দেখে ওদের মুখও ভারী হয়ে গেছে করুণ বিষাদে।

ছেলে রুবেলের এসএসসির রেজাল্ট দেখে যেতে পারলো না বাবা :

স্ত্রী, দুই মেয়ে আর এক ছেলে নিয়ে ছিল রাজ্জাকের সাজানো সংসার। ছেলের নাম মো. রুবেল হোসেন। স্থানীয় পাইকপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে সদ্য এসএসসি পাশ করেছে। অভাবের সংসারে বাবার কাঠের কাজে সহায়তা করে পড়াশোনা চালাতো অদম্য রুবেল। এসএসসিতে তার জিপিএ পয়েন্ট ৩.০৬। কিন্তু হতভাগা রুবেলের আজ বাবা-মায়ের সঙ্গে মিষ্টি খাওয়া আর সহপাঠীদের সঙ্গে আনন্দ উদযাপনের কথা থাকলেও তার এই সময়টি কেটেছে বাবার লাশের পাশে! নিষ্ঠুর মোড়ল-মাতব্বরদের স্বার্থের কাছে হার মেনেছে রুবেলের পাশ-আনন্দ!

রুবেলের এসএসসির রেজাল্টের নম্বরপত্র (ছবি : ইন্টারনেট)

সন্তানদের উচ্চশিক্ষা নিয়ে চিন্তিত মা :

পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম হাতিয়ারকে হারিয়ে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন স্ত্রী পলি খাতুন (৩৫)। তিন সন্তানের লেখাপড়া চালানো এখন স্বামী হারানো শোককে করেছে আরও পাথর।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে দৈনিক অধিকারকে পলি খাতুন বলেন, দুইটা গরু ছাড়া কিছুই নাই। এখন আমি আমার ছেলেকে কলেজে ভর্তি করব কীভাবে? আর মেয়েদেরেই বা কী হবে। মাঠেও জায়গা-জমি নেই কিছুই।

তবে এ ব্যাপারে খোকসা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌসুমী জেরীন কান্তা দৈনিক অধিকারকে বলেন, রুবেলের পড়াশোনা টাকার জন্য আটকে থাকবে না। আমি রুবেলসহ ওর দুই বোন হাসি-খুশির লেখাপড়া যাতে চালিয়ে যেতে পারে- সে ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যাবতীয় সহায়তা করা হবে। আর প্রাথমিকভাবে তাদের খাদ্যসংকট থাকলে সেটারও সমাধান করবে উপজেলা প্রশাসন।

কী ঘটেছিল সেদিন :

বিরোধের জের ধরে গ্রামের মসজিদের ইমাম নিয়োগকে কেন্দ্র করে। স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, শুক্রবার (২৯ মে) পবিত্র জুম্মা নামাজ শেষে মানিকাট মধ্যপাড়ার জামে মসজিদের নেতৃত্ব নেওয়া ও ইমাম নিয়োগকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে। মসজিদ থেকে হামলা শুরু হলেও কয়েক মিনিটের ব্যবধানেই তা ছড়িয়ে পড়ে গোত্রের মধ্যে। পরে তা রূপ নেয় গ্রামব্যাপী। হামলা-পাল্টা হামলায় দুই পক্ষের অন্তত ১৭ জন আহত হয়।

সংঘর্ষ চলাকালেই পুলিশ দু‘পক্ষকে নিবৃত্ত করে ঘটনাস্থল থেকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্থানীয় ইউপি সদস্য আশরাফ আলী ও উপজেলা মসজিদের পেশ ইমাম আবু দাউদ খান চাঁদসহ আটজনকে আটক করে। আহতদের খোকসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। তাদের মধ্যে আব্দুর রাজ্জাকের অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে প্রথমে কুষ্টিয়া জেনালের হাসপাতালে পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। চিকিৎসার এক পর্যায়ে তিনি মারা যান।

হামলার ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা :

শুক্রবার জুম্মার নামাজের সময় মসজিদে হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনায় ওইদিন রাতে খোকসা থানায় পৃথক পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। শুক্রবার আটকদের মধ্য থেকে এসব মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে শিমুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আশরাফ আলীসহ ছয়জনকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

মামলা দুটির তদন্তকারী কর্মকর্তা বক্তব্য :

হামলার ঘটনায় দায়ের করা পৃথক মামলা দুটির তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সিরাজুল ইসলাম দৈনিক অধিকারকে বলেন, ছবেদ আলী খাঁ এর দায়ের করা মামলা এখন হত্যা মামলায় পরিণত হবে। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে দায়ের করা মামলা দুটিতে মোট ৬ জেলে পাঠানো হয়েছে।

এলাকায় মোতায়েন পুলিশ মোতায়েন (ছবি : দৈনিক অধিকার)

তিনি আরও বলেন, গ্রামের অবস্থা এখন অনেকটাই শান্ত। এলাকার আইন-শৃঙ্খলা পরিবেশ রক্ষায় মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ।

নিহতের পরিবারের বক্তব্য :

নিহতের দুরসম্পর্কের দাদা আয়ুব আলী দৈনিক অধিকারকে বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের কিছু নেতার সমর্থনে তাদের প্রতিপক্ষ গ্রামের মধ্যপাড়া ও উত্তরপাড়ার দুটি মসজিদে একক নেতৃত্ব কায়েম করার চেষ্টা করছে। আমার দুই ছেলে মধ্যপাড়া ও উত্তরপাড়ার মসজিদে ইমামতি করেন। প্রতিপক্ষ অনেক দিন থেকেই আমার ছেলেদের বাদ দেওয়ার চেষ্টা করছে। এর সূত্র ধরেই তারা নিলর্জ্জভাবে আমাদের লোকজনের উপর হামলা করে।

প্রতিপক্ষ গ্রুপের বক্তব্য :

এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষ গ্রুপের মূল হোতা আকুত আলী দৈনিক অধিকারকে বলেন, আমি এসব মারামারির ব্যাপারে কিছুই জানতাম না। আমি মারামারির সময় জমি মাপার কাজে ব্যস্ত ছিলাম। ওরাই আমাদের লোকজনের উপর হামলা চালিয়েছে।

ওরা হামলা চালালে কীভাবে ওদের লোক মারা গেল- এমন প্রশ্নের কোনো জবাব দিতে পারেননি আকুত আলী।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড