• শুক্রবার, ০৩ জুলাই ২০২০, ১৯ আষাঢ় ১৪২৭  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ঘূর্ণিঝড়ের শঙ্কার মাঝে ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারে পদ্মা পাড়ি

  সারাদেশ ডেস্ক

২০ মে ২০২০, ০৯:৩০
পদ্মা পাড়ি
ঘূর্ণিঝড়ের শঙ্কার মাঝে ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারে পদ্মা পাড়ি (ছবি : সংগৃহীত)

শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌ-রুটে জনসমুদ্র এড়াতে অনির্দিষ্টকালের জন্য ফেরি সার্ভিস বন্ধ করলেও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকালি বাহিনীর চোখ এড়িয়ে অবৈধ ট্রলারে চড়ে জীবনের চরম ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা নদী পাড়ি দিচ্ছেন যাত্রীরা। সুপার সাইক্লোন ‘আম্ফানের’ শঙ্কার মাঝেই পুরাতন মাওয়া ঘাট থেকে ট্রলারগুলো ছেড়ে এসে ২ দফা চরে নেমে ভিড়ছে কাঠালবাড়ি ঘাটের দূরবর্তী স্থানে পদ্মা সেতুর কাছে। এতে যাত্রীপ্রতি খরচ হচ্ছে ৫ থেকে ৬শ টাকা। শারীরিক দূরত্ব তো দূরে থাক মানা হচ্ছে না কোনো আইনও।

সরেজমিনে জানা যায়, গত কয়েকদিন ধরে প্রশাসনিক তৎপরতা কমায় শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌ-রুটের ফেরিগুলোতে ছিল উভয়মুখী যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। ফেরি চলাচল সীমিত থেকে বাড়িয়ে ১২টি সচল করতে বাধ্য হয় বিআইডাব্লিউটিসি। গত ২ থেকে ৩ দিন ধরে দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীদের ভিড় বেড়েই চলছিল। রবিবার (১৭ মে) রাত থেকে আবারো সীমিত করে মাত্র ৪টি ফেরি চালু রাখে বিআইডাব্লিউটিসি। সোমবার (১৮ মে) সকালে এ রুট হয়ে যাত্রীদের ঢল নামে। একপর্যায়ে এ ঢল জনসমুদ্রে রূপ নেয়। বাধ্য হয়ে সবক'টি ফেরি চালু করে শুধু যাত্রী পারাপার করা হয়। বিকেলেই সকল ফেরি বন্ধ করা হয়।

এ দিকে, মঙ্গলবার (১৯ মে) সকাল থেকে কোনো ধরনের পরিবহন ও যাত্রী পার হতে দেয়নি পুলিশ। এ সুযোগে দুপুরের দিক থেকে শিমুলিয়ায় স্থান পরিবর্তন করে পুরাতন মাওয়া ঘাট থেকে অবৈধ ট্রলার ছেড়ে আসা শুরু করে। প্রতিটি ট্রলারেই ছিল উপচে পড়া যাত্রী। ট্রলারগুলো মাওয়া থেকে ছেড়ে জাজিরা, শিবচরের চরগুলো ব্যবহার করে ২ দফা ট্রলার পরিবর্তন করে পদ্মা সেতুর কাছে শিবচর ও জাজিরার সীমানায় বুড়ার খেয়াঘাট এলাকাগুলোতে যাত্রী নামায়। যাত্রীপ্রতি ৫ থেকে ৬ শ টাকা খরচ হয়। এখান থেকে পরে ইজিবাইক-মোটরসাইকেলে চড়ে বরিশাল, খুলনাসহ দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলোতে ৫ থেকে ৬ গুণ ভাড়া খরচ করে ছুটছে মানুষ।

আরও পড়ুন : মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত

এ ব্যাপারে বিআইডাব্লিউটিসির কাঠালবাড়ি ঘাট ম্যানেজার আ. আলিম মিয়া বলেন, যাত্রীদের যে চাপ পড়ে তাতে ফেরিতে কোনো গাড়িই নেওয়া যায় না। স্বাস্থ্যবিধির এখানে কোনো পাত্তাই নেই।

অন্যদিকে, সহকারী পুলিশ সুপার আবির হোসেন বলেন, লকডাউন ও ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে। কোনো অবস্থাতেই কাউকে ওপারে যেতে দেব না।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড