• সোমবার, ০১ জুন ২০২০, ১৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ভালুকায় নিখোঁজের ৯ দিন পর লাশ উদ্ধার

  ভালুকা প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ

১৭ মে ২০২০, ০৮:০৩
ময়মনসিংহ
ফাইল ছবি

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় উড়াহাটি মীরপাড়া এলাকা থেকে নিখোঁজের ৯ দিন পর মো. চানু মীর (৬৫) নামে এক বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (১৫ মে) সকালে ভালুকা উপজেলার রাজৈ ইউনিয়নের উড়াহাটি গ্রামের মধুনি পাথারের খালে কচুরিপানার ভেতর থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত চানু মীর ভালুকা উপজেলার রাজৈ ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের উড়াহাটি মীরপাড়া গ্রামের মৃত আক্কাছ আলীর ছেলে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার (৬ মে) রাতে চানু মীর খাবার খেয়ে তার নিজ ঘরে শুয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে তাকে পাওয়া যাচ্ছিল না। এরপর থেকেই বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করার পর তাকে না পাওয়ার গেলে। একটি ফেইসবুক আইডিতে নিখোঁজের স্ট্যাটাস দেওয়া হয়। পরবর্তীতে শুক্রবার (১৫ মে) সকালের দিকে শ্রমিকরা ক্ষেতে ধান কাটতে যায়। এ সময় চানু মীরের লাশটি মধুনি পাথারের খালে কচুরিপানার ভেতরে দেখতে পায়। পরে স্থানীয়রা ভালুকা মডেল থানার পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করে।

নিহতের ছোট ভাই শহীদ মুঠোফোনে জানান, ভাইকে ভূত-পেত্নী ধরতো ও পাগল ছিল। রাতে সেহরি খাওয়ার সময় বড় ভাইকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। এর আগে দু-একবার বাড়ি থেকে চলে গেছে। আমার ভাই নিজে নিজেই বাড়িতে ফিরে আসতেন। জিডির বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলে আমরা কোন জিডি করেনি। 

এদিকে উপজেলা রাজৈ ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের উড়াহাটি গ্রামের বাসিন্দা মো. শাজাহান সরকার মুঠোফোনে জানান, চানু মীর পাগল না তার একটু সমস্যা ছিল। তিনি বিভিন্ন মাজারে গিয়ে জিকির করতেন।

এদিকে রাজৈ ইউনিয়নের উড়াহাটি গ্রামের বাসিন্দা মো. মাসুদ মিয়া মুঠোফোনে জানান, চানু মীর ঠেলা গাড়ি চালাতেন। সে আমার জানামতে ভালো ছিল এবং প্রতিদিন মানুষের কাজ কর্ম করে টাকা উপার্জন করতেন। আমাদের প্রশ্ন, নিখোঁজের ৯ দিন পর চানু মীরের লাশ পাওয়া যায়। কেন? লাশটি ময়না তদন্ত ছাড়াই দাফন করা হয়। 

ভালুকা উপজেলার রাজৈ ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য লিয়াকত বেপারী মুঠোফোনে জানান, চানু মীর বিভিন্ন কাজ কর্ম ও ঠেলা গাড়ি চালাতেন। সে বিয়ে করেছিল বউ চলে যায়। তার কোন সন্তানাদি নাই। চানু মীরের ভাতিজা কিছুদিন আগে আমার কাছে এসে বলে আমার চাচা রাগ করে বাড়ি থেকে চলে গেছে। চাচাকে ৩-৪ দিন যাবত পাওয়া যাচ্ছে না। এর আগেও আরও দু-একবার বাড়ি থেকে চলে গেছে। আরও যে চলে গেছে তা আগে জানাওনি কেন? তার ভাতিজা বলে চাচা বিভিন্ন মাজারে চলে যেতো ১০-১২ দিন পর বাড়িতে ফিরে আসতো। পরে আমি বললাম যেহেতু তাকে পাওয়া যাচ্ছে না, তাই থানায় গিয়ে জিডি করো এবং তোমাদের আত্মীয়দের বাড়িতে খোঁজ খবর নাও। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভালুকা উপজেলার রাজৈ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইসলাম বাদশা মুঠোফোনে দৈনিক অধিকারকে বলেন, চানু মীর পাগল প্রকৃতির ছিল। সে মাঝে মাঝে বাড়ি থেকে চলে যেতো আরও বলতো আমি চলে যাব। তার লাশ মধুনি পাথারের খালে পাওয়া যায়। 

শনিবার (১৬ মে) রাত ৮টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করে ভালুকা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন মুঠোফোনে দৈনিক অধিকারকে বলেন, নিখোঁজের ৯ দিন পর চানু মীরের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজের প্রকৃত কারণ জানা যায়নি। তবে সে মানসিক প্রতিবন্ধী ছিল। লাশটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড