• মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কুড়িগ্রামে যুবককে অপহরণ করে হত্যাচেষ্টা : আটক-৪

  সারাদেশ ডেস্ক

২৬ মার্চ ২০২০, ০৯:০৮
কুড়িগ্রাম
উলিপুর থানা

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার দুর্গম ব্রহ্মপুত্র চরে রাকিবুল ইসলাম (২৫) নামে এক যুবককে অপহরণ করে হত্যাচেষ্টার সময় ৪জনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় জনতা। 

আটককৃতরা হলো একই উপজেলার ধরণীবাড়ি ইউনিয়নের চাকরীচ্যুত সেনাসদস্য এরশাদুল হক (৪৪), মাহাবুব (৩২), রাশেদুল ইসলাম (৩০) ও আব্দুল মান্নান (৩৫)। এসময় পলাশ মিয়া নামে অপর এক সহযোগী পালিয়ে যায়। আটককৃতদের বুধবার (২৫মার্চ)কুড়িগ্রাম জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ধরণীবাড়ি ইউনিয়নের মাদারটারী গ্রামের ইউসুফ আলীর কন্যা সুলতানা ওরফে ইসমোতারার সাথে ঢাকায় তার গার্মেন্টস সহকর্মী ও সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ উপজেলার সরাই হাজীপুর গ্রামের আফছার আলীর পুত্র রাকিবুল ইসলামের সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। 

তারা তিন বছর আগে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয় বলে জানান। এই বিয়ে নিয়ে সন্দেহ ছিল ইসমোতারার পার্শ্ববর্তী মধূপুর গ্রামের ছনসল মিয়ার পুত্র চাকরীচ্যুত  সেনাসদস্য এরশাদুল হকের। এনিয়ে লোকজনসহ মঙ্গলবার দুপুরে (২৪ মার্চ) ইসমোতারার বাড়িতে গিয়ে বিয়ের বৈধতা নিয়ে চ্যালেঞ্জ করে সে। এরপর আলাপ আছে বলে রাকিবুল ইসলামকে কৌশলে বাড়ি থেকে আলাদা জায়গায় নিয়ে যায়। এরপর থেকে রাকিবুলের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

দুর্বৃত্তরা প্রথমে রাকিবুলকে মোটর সাইকেলে তুলে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে সময় নষ্ট করে। আর এরই ফাঁকে রাকিবুলের বাবার কাছে ৩ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ হিসেবে দাবি করে। টাকা দিতে টালবাহানা করায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে দলটি। তারা পার্শ্ববর্তী হাতিয়া ইউনিয়নের পালেরভিটা নামক স্থানে গিয়ে রাকিবুলের উপর শারীরিক নির্যাতন চালায়। 

এসময় তারা জোরপূর্বক ফাঁকা স্টামে তার স্বাক্ষর গ্রহণ করে। পরে গভীর রাতে দুর্বৃত্তরা রাকিবুলকে ব্রহ্মপুত্র পাড়ি দিয়ে দুর্গম চরে নিয়ে যায়। সেখানে নির্যাতন করে পরিবারে ফোন ধরিয়ে দেয়। রাকিবুলের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন টের পেয়ে দুর্বৃত্ত দলটিকে ঘিরে ফেলে।

পরে তাদেরকে আটক করে স্থানীয় লোকজন পুলিশের সহযোগিতা চেয়ে ৯৯৯ নম্বরে কল দেয়। গভীর রাতেই উলিপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ধরনীবাড়ি ইউনিয়নের মধুপুর গ্রামের ছনসল ইসলামের পুত্র চাকরীচ্যুত সেনা সদস্য এরশাদুল হক (৪৪) একই ইউনিয়নের মাদারটারী গ্রামের আব্দুল মান্নানের পুত্র মাহাবুর (৩২), আব্দুল লতিফের পুত্র রাশেদুল ইসলাম (৩০) ওমর আলীর পুত্র আব্দুর মান্নার (৩৫) কে আটক থানায় নিয়ে আসে। এসময় মাদারটারী গ্রামের আব্দুর রহিম (সাধু) মিয়ার পুত্র পলাশ মিয়া (২৮) পালিয়ে যায়।

রাকিবুলের স্ত্রী ইসমোতারা জানান, এরশাদুল আর্মি আমার বাড়িতে এসে আমাদের বিয়ের ব্যাপারে জানতে চায়। আমরা তিন বছর আগে বিয়ে করেছি বললেও তারা বিশ্বাস করতে চায়না। পরে তারা আমার স্বামীকে তুলে নিয়ে নির্যাতন করে হত্যার উদ্দেশ্যে ব্রহ্মপুত্র নদে নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে রাকিবুলের পিতা আফছার আলী মুঠোফোনে জানান, মঙ্গলবার দুপুর থেকে আমার ছেলের মোবাইল ফোন দিয়ে একজন কল করে ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন। টাকা দিতে অপারগতা জানালে পরবর্তীতে আমার ছেলেকে মারধর করা অবস্থায় ফোন দিয়ে ছেলের কান্নাকাটি শোনায়। পরে বিষয়টি রায়গঞ্জ থানায় অবগত করি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, এ ব্যাপারে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামিদের বুধবার জেল-হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড