• শনিবার, ০৪ এপ্রিল ২০২০, ২১ চৈত্র ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পাবনায় ৯ ডাক্তার-নার্সসহ হোম কোয়ারেন্টিনে ৭৬৬ জন 

  পাবনা প্রতিনিধি

২৫ মার্চ ২০২০, ২১:৩৪
হোম
হোম কোয়ারেন্টিন (ছবি : প্রতীকী)

পাবনায় চিকিৎসক ও নার্সসহ ৭৬৬ জন হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। এর মধ্যে এক প্রবাসীকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পরে তার নমুনা সংগ্রহের জন্য আইইডিসিআরকে অবহিত করা হয়। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় আরও ৫৭ ব্যক্তিতে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। 

বুধবার (২৫ মার্চ) পাবনার সিভিল সার্জন ডা. মেহেদী হাসান ইকবাল বিষয়টি গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে নিশ্চিত করেছেন। তবে বিদেশ থেকে আসা ৩ হাজার প্রবাসীরা সুনির্দিষ্ট অবস্থানে নেই। 

এ দিকে, করোনা আতঙ্কে পাবনা জেনারেল হাসপাতাল ছেড়ে সাধারণ অনেক রোগী চলে গেছেন। শুধু গুরুতর রোগী ছাড়া অন্য কোনো রোগী বর্তমানে হাসপাতালে নেই। তবে এখনো কোনো রোগী হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি হয়নি। জরুরি সেবা নিশ্চিত করতে তারা মানবিক আবেদন জানিয়েছেন। হাসপাতালে রোগী আর সেবায় নিয়োজিত ডাক্তার-নার্সদের মধ্যে চরম আতঙ্ক লক্ষ্য করা গেছে। পাবনায় বিদেশফেরত প্রায় ৩ হাজার মানুষ কোথায় আছে তা কেউ জানে না। 


পাবনার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. কেএম আবু জাফর জানান, বিদেশফেরত এসব ব্যক্তিদের বাড়িতে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু তাদের বাড়িতে পাওয়া যায়নি। 

তিনি আরও জানান, পাবনায় এখন পর্যন্ত কোনো করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়নি। একজনকে করোনা সন্দেহে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছিলো তার নেগেটিভ ফল এসেছে। যাদের হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে তারা বিদেশফেরত। 

এ দিকে, বুধবার জেলা প্রশাসক কবির মাহমুদ ও পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে প্রশাসনের কর্মকর্তারা করোনা থেকে রক্ষায় জনসচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

আরও পড়ুন : বঙ্গবন্ধু সেতুতে দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

কর্মকর্তারা শহরের প্রধান সড়ক আব্দুল হামিদ রোড, বড় বাজার, নিউমার্কেট, রূপকথা রোডসহ জনসমাগমপ্রবণ এলাকাগুলোতে লিফলেট বিতরণসহ জনসাধারণকে পরামর্শ প্রদান করেন। এছাড়া গত দুই দিন ধরে শহরের রাস্তায় রাস্তায় টহল দিচ্ছে পুলিশ। খুবই প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাইরে ঘুরছে কি না তা তদারকি করছেন তারা। 

এর আগে, গত দুইদিন ধরে জেলার সব ধরনের দোকান, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। তবে ওষুধের দোকান, কাঁচা তরকারি ও মুদি দোকান খোলা রয়েছে।

ওডি/এমআরকে

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড