• বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৬  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ভিক্ষা ছেড়ে বাঁশ ও বেতের কাজ করে স্বাবলম্বী মনোয়ারা 

  এম আনোয়ার হোসেন, মিরসরাই, চট্টগ্রাম

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:০২
চট্টগ্রাম
মনোয়ারা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

মনোয়ারা বেগম। এক সংগ্রামী নারীর নাম। তিনি ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন, হয়েছেন স্বাবলম্বী। প্রচেষ্টা একজন মানুষকে বদলে দিতে পারে তার প্রমাণ মনোয়ারা।

১৯৮২ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি এই নারী মিরসরাই উপজেলার ১১ নম্বর মঘাদিয়া ইউনিয়নের বদিউল্লাহ পাড়া গ্রামে হতদরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা ছিল দিনমজুর, লাকড়ি কেটে সংসার চালাত। অভাব অনটনের শুরু ছিল কিন্তু শেষ ছিল না। চার ভাই এক বোনসহ ছয়জনের ভরণপোষণ চালানো হতদরিদ্র বাবার পক্ষে অসম্ভব হয়ে পড়েছিল। ধারদেনা এত বেশি হয়ে গিয়েছিল যে তা শোধ করতে শেষ সম্বল ভিটেবাড়িও বিক্রি করতে হয় তাকে। পরবর্তীতে করেরহাট ইউনিয়নের ঘেড়ামারা গ্রামে চার শতক জমি কিনে পাহাড়ি এলাকায় বসতি স্থাপন করেন। ছিল অভাবের সংসার তাই পড়ালেখা করার সুযোগ হয়ে ওঠেনি মনোয়ারার।

বাবা-মায়ের চিন্তা ছিল কীভাবে মনোয়ারাকে বিয়ে দেবে। তার বয়স যখন ১৮ বছর তখন পাহাড়ি শ্রমিক আবুল কাশেমের সাথে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে আসে এক ছেলে ও দুই মেয়ে। মনোয়ারা বেগমের চিন্তা ছিল কীভাবে এক ছেলে, দুই মেয়ে এবং স্বামীকে নিয়ে সুন্দরভাবে সংসার চালানো যায়। কিন্তু নিয়তির নির্মম পরিহাস তার বড় মেয়ের বয়স যখন ১০ বছর তখন তার স্বামী হৃদরোগে মারা যান।

স্বামী মারা যাওয়ার পর মনোয়ারার জীবনে নেমে আসে দুর্বিষহ অন্ধকার। তার ভবিষ্যৎ প্রায় এলোমেলো, কীভাবে ছেলেমেয়ে নিয়ে সংসার চালাবে। তার পরিবার চালানো প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটাতে লাগল সে। অভাবের তাড়নায় ক্ষুধার জ্বালায় অন্যের বাড়িতে কাজ করে একবেলা খাবার জুটত তো অন্য বেলা উপোস থাকতে হতো। শেষ পর্যন্ত ছেলেমেয়ে নিয়ে নিরুপায় হয়ে সমাজের অবহেলিত কাজটা হাতে নিয়ে গ্রামে গ্রামে ভিক্ষা করতে লাগল। ভিক্ষা করতে গিয়েও শান্তি নেই মনোয়ারার। মানুষের অবহেলা আর তিরস্কার নিয়ে সবসময় চিন্তায় থাকতেন। 

এরই মধ্যে এলাকার স্থানীয় মানুষের কাছ থেকে এবং অন্যান্য উদ্যোমী সদস্যদের মাধ্যমে ‘অপকা উদ্যোমী সদস্য পুনর্বাসন’ প্রক্রিয়ার কথা জানতে পেরে অপকারের নিকট দারস্থ হন মনোয়ারা। একপর্যায়ে এলাকার জনপ্রতিনিধি ও অপকার কর্মকর্তারা সার্বিক খোঁজখবর নিয়ে, উদ্যোমী সদস্য পুনর্বাসন কার্যক্রমের আওতায় মৃত কালু ত্রিপুরার পরিবর্তে মনোয়ারা বেগমকে ৬৫ হাজার টাকা অনুদান দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। যা দিয়ে আয়বৃদ্ধিমূলক খাত বাহির করে গরু-ছাগল, মুরগি, কবুতর ও বাঁশ বেতের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়, সাথে তাকে এক মাসের ভরণপোষণের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়। একমাত্র ছেলে সোহরাব হোসেন দিদারকে জোরারগঞ্জ তালিমুল কোরআন হাফেজিয়া মাদরাসায় হেফজ পড়াচ্ছেন। ছোট মেয়ে বিবি ফাতেমা করেরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত অন্য মেয়ে বিবি ছকিনা অন্যের বাসায় কাজ করে। 

আরও পড়ুন : সিরাজদিখানে কলেজ ছাত্রকে মারধরের অভিযোগ 

অপকার নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ আলমগীর বলেন, বাঁশ-বেতের কাজ, মুরগি ও কবুতর পালন করে পরিবারের ভরণপোষণ ও চিকিৎসাসহ সকল খরচ মেটাতে পারে মনোয়ারা। তার ছেলে মেয়ে নিয়ে এখন সে সুখী। ভিক্ষার মতো ঘৃণিত কাজ করতে অন্যকে নিরুৎসাহিত করে সে। সে এখন ভিক্ষা করে না বরং অন্যকে ভিক্ষা দেয়। অপকা এবং পিকেএসএফর এই ধরনের সহযোগিতা পেয়ে তিনি বসবাসের জন্য একটি নতুন ঘর নির্মাণ করেন। 

ওডি/জেএস
 

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড