• শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭  |   ২০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রয়োজনীয় জায়গায় রাস্তা নেই, একই বাড়িতে দুটি

  মো. জাবেদ শেখ, শরীয়তপুর

১৪ জানুয়ারি ২০২০, ২১:১৮
একই বাড়িতে দুটি রাস্তা
একই বাড়িতে দুটি রাস্তা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

প্রয়োজনীয় জায়গায় রাস্তা নেই। একই বাড়িতে দুটি রাস্তা। এমনি অভিযোগ করেন শরীয়তপুর সদর উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নে হবিপুর ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা।

মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) সরেজমিনে দেখা যায়, কাজটি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর কর্তৃক ২০১৯-২০ অর্থ বছরের অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসূচি প্রথম পর্যায়ের কাজ। প্রকল্প কমিটির চেয়ারম্যান ওই ওয়ার্ডের মেম্বার নুরুন্নেসা বেগম।

মেম্বার নুরুন্নেসা বেগমের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তার স্বামী দলিল উদ্দিন বলেন, আমার স্ত্রী মেম্বার হলেও সে গুছিয়ে কথা বলতে পারে না। যা বলার আমার সঙ্গে বলুন। আমিই সব কাজ করি। একই বাড়িতে দুটি রাস্তা কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, হাবিব বেপারির বাড়ি থেকে বাদল ঢালীর বাড়ি পর্যন্ত রাস্তাটি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু ড্রেজার দিয়ে পুকুর খননে ও খালে পানি থাকাতে রাস্তা করা যায়নি।

পরবর্তীতে এই রাস্তাটি শরীয়তপুর-১ আসনের এমপি ইকবাল হোসেন অপু মিয়ার ভাই, বিল্লাল হোসেন দিপু মিয়ার সুপারিশে তৈরি করা হয়।

তিনি আরও বলেন, এই রাস্তার জন্য চেয়ারম্যান শাজাহান ঢালী আমার কাছে ১৫ পার্সেন্ট টাকা ও পাঁচজন লেভারসহ মোট ৭০ হাজার টাকা চেয়েছিল। আমি টাকা না দেওয়াতে তিনি এই ঝামেলা করছেন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, হাবিব বেপারির বাড়ি থেকে বাদল ঢালীর বাড়ি পর্যন্ত রাস্তাটি অতি প্রয়োজনীয়। তা না করে ইদ্রিস ফকিরের বাড়ির পশ্চিম পাশে রাস্তা থাকতেও পূর্ব পাশে আরেকটি রাস্তা নির্মাণ করেন।

গ্রামের বাসিন্দারা বলেন, আমাদের এই রাস্তাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রাস্তা না থাকার জন্য ঘরে পানি ওঠে। বর্ষাকাল হলে আমরা ঘর থেকে বেরোতে পারি না। চলাচলে সমস্যা হয়। রাস্তায় কাদামাটি থাকে। নৌকা দিয়ে চলাচল করতে হয়। এই রাস্তা দিয়ে আমরা চন্দ্রপুর বাজারে যাই। এই রাস্তাটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

আরও পড়ুন : কিশোর নির্যাতন : ৪ আসামি কারাগারে

তারা আরও বলেন, হবিপুর ইটের রাস্তা থেকে ইদ্রিস ফকিরের বাড়ির অভিমুখী রাস্তা পুনর্নির্মাণের কাজে ২৫ জন উপকারভোগী কাজ করার নিয়ম থাকলেও সেখানে ৬ থেকে ৭ জন লেভার দিয়ে কাজ করিয়েছেন। মোট দুই লাখ টাকা ব্যয়ে ৩৫ লাখ ঘনফুট মাটি দিয়ে এই রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মাহমুদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাজাহান ঢালীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাংবাদিকদের ম্যানেজ করার জন্য টাকা চেয়েছিলাম। সে টাকা দেয়নি। আমি উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে বলছিলাম। চেয়ারম্যান বলেছিল, রাস্তা অন্য জায়গায় দেন। আপনি অন্য জায়গায় রাস্তা না করে, কেন এই জায়গায় করলেন। এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যা-ই হোক আপনি রাস্তার কাজের মেম্বার নুরুন্নেসার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। আপনাকে খুশি করে দেবে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহবুবুর রহমান শেখ দৈনিক অধিকারকে বলেন, এক বাড়িতে দুটি রাস্তা কেউ এ পর্যন্ত জানায়নি। এই প্রথম আপনি বললেন। এটা ইউপি চেয়ারম্যান নির্ধারণ করেন। গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা থাকলে, আমার কাছে লিখিত আবেদন করলে আমি তা করে দেব।

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801703790747, +8801721978664, 02-9110584 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড