• সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সাইদুর হত্যার রহস্য উন্মোচন

  ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

১৩ জানুয়ারি ২০২০, ১৮:৪৫
সাইদুর হত্যার রহস্য উন্মোচন
গ্রেপ্তারকৃত সাইদুর রহমান (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার সিএনজি অটোরিকশা চালক সাইদুর রহমানকে (১৯) গলা কেটে হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ।

সোমবার (১৩ জানুয়ারি) দুপুর ১২টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশ লাইন্সে সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের হত্যার রহস্যের তথ্য জানান পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান।

রবিবার (১২ জানুয়ারি) কসবা উপজেলার শীতলপাড়া এলাকা থেকে পুলিশ হত্যাকারী রানাকে (২০) গ্রেপ্তার করে। রানা উপজেলার কাঞ্চনমুড়ি এলাকার দানু মিয়ার ছেলে।

এসপি আনিসুর রহমান জানান, রানা ও সাইদুর সম্পর্কে চাচা-ভাতিজা। দুইজনের বাড়িও একই এলাকায়। সমবয়সী হওয়ায় তাদের চলাফেরা একসঙ্গে। গত ২৯ ডিসেম্বর কসবা সীমান্ত কমপ্লেক্সের সামনে সাইদুরের সঙ্গে রানার দেখা হয়। তখন সাইদুরের মানিব্যাগে থাকা বেশ কিছু টাকা ও একটি দামি মোবাইল ফোন দেখে রানার লোভ হয়। রানা তখন ফন্দি আঁটতে থাকে টাকা ও মোবাইল ফোন হাতিয়ে নেওয়ার জন্য।

এসপি জানান, ফন্দির অংশ হিসেবে ‘রাতে এক লোক ইয়াবা নিয়ে আসবে, অটোরিকশায় করে সেই ইয়াবা পৌঁছে দিলে চার হাজার টাকা দিবে’ বলে সাইদুরকে প্রলোভন দেখায়। কথা অনুযায়ী রাত সাড়ে ৭টায় কাঞ্চনমুড়ি ড্রেজারের মাঠে হাজির হয় সাইদুর। এরপর মাঠে দাঁড়িয়ে সাইদুর মুঠোফোনে কথা বলতে থাকে। এ সময় রানা একটি বাঁশের খুঁটি দিয়ে পেছন থেকে সাইদুরের মাথায় আঘাত করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। এরপর সাইদুরকে মাফলার দিয়ে গলায় পেঁচিয়ে ধরে রানা। পরে ক্ষুর দিয়ে গলা কেটে হত্যা করে মানিব্যাগ ও মোবাইল ফোন রেখে মাঠের পাশে সাইদুরের মরদেহ একটি বাথরুমের সেপটিক ট্যাংকে ফেলে দেয় রানা।

আরও পড়ুন: সাতক্ষীরায় সড়কে ঝরল মোটরসাইকেল আরোহীর প্রাণ

এসপি আরও জানান, সাইদুরকে হত্যার পর পর্যন্ত তার প্রেমিকা ফোনে কথা বলছিল। হত্যার পর রানা ফোনের সংযোগ কেটে দেয়। এরপর সেই ফোনে তার সিমকার্ড ঢুকিয়ে একটি নম্বরে ৩০ সেকেন্ড কথা বলে। প্রেমিকার কথা এবং সেই ৩০ সেকেন্ডের কথার সূত্র ধরে মোবাইল ফোন ও নম্বর ট্র্যাক করেই রানাকে শনাক্ত করা হয়। রানা ঘটনার পর কসবা থেকে পালিয়ে যায়। তাকে শনাক্ত করার পরও আমাদের সন্দেহ হয়নি মনে করানোর জন্য আমরা অন্য একজনকে গ্রেপ্তার করি। পরবর্তীতে সে নির্ভয়ে এলাকায় আসলে তাকে আমরা গ্রেপ্তার করি।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রেজাউল কবির, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর দপ্তর) আবু সাঈদ ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কসবা সার্কেল) আব্দুল করিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

গত ২৯ ডিসেম্বর সাইদুর রহমান নিখোঁজ হওয়ার পর গত ২ জানুয়ারি কাঞ্চনমুড়ি এলাকার একটি বাথরুমের সেপটিক ট্যাংকের ভেতর থেকে তার গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় সাইদুরের মা হনুফা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে কসবা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
nite
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
jachai

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড