• বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৬ ফাল্গুন ১৪২৬  |   ২০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বৃদ্ধা মাকে গোয়ালঘরে রেখে আসলো ৪ সন্তান 

  ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

১২ জানুয়ারি ২০২০, ২২:২০
গোয়ালঘরে বৃদ্ধা
গোয়ালঘরে বৃদ্ধা হাজেরা বেগম ( ছবি : দৈনিক অধিকার )

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের বৃদ্ধা মা হাজেরা বেগমের (৮০) ঠাঁই হলো গোয়ালঘরে। কনকনে শীতের রাতে মাকে গোয়ালঘরে রেখে যায় ছেলে আব্দুস সাত্তার। এ ব্যাপারে প্রতিবেশী কাউসার প্রতিবাদ করলে ছেলে সাত্তার উত্তেজিত হলে জানায়, ‘আমার মাকে যেখানে খুশি সেখানে রাখব তাতে তোর কী।’

রবিবার (১১ জানুয়ারি) সকালে উপজেলার গফরগাঁও ইউনিয়নের উথুরী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরে খবর পেয়ে থানার এসআই নাজিম উদ্দিন বিধবা হাজেরা বেগমের বড় ছেলে আব্দুস সাত্তার ও তার ছেলে উজ্জলকে আটক করে।

এর আগে গত বছর মে মাসে ছেলে সাত্তার বৃদ্ধাকে রাস্তায় ফেলে যায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে। মাকে আর অবহেলা করবে না পুলিশের কাছে এমন মুচলেকা দিয়ে বৃদ্ধা মাকে ঘরে তুলে ছেলে সাত্তার। এর ৮ মাস পর এবার সেই মাকে কনকনে শীতের রাতে গোয়ালঘরে ফেলে যায় ছেলে সাত্তার।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় ১৬ বছর আগে হাজেরা বেগমের স্বামী রেসমত আলী মারা যান। মৃত্যুর আগে ১২ কাঠা জমি স্ত্রী হাজেরা বেগমের নামে লিখে দিয়ে যান। স্বামীর মৃত্যুর পর ৪ ছেলে কিছুদিন হাজেরা বেগমের ভরণ-পোষণ দেন। এরপর গোপনে ছোট ছেলে সাইফুল ইসলাম মা হাজেরা বেগমের কাছ থেকে জমি লিখে নেয়।

এ খবর অন্য ছেলেরা জানতে পেরে মা হাজেরা বেগমের খোঁজখবর ও ভরণ-পোষণ দেওয়া বন্ধ করে দেয়। এ অবস্থায় হাজেরা বেগম তার ছোট ছেলে সাইফুলের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। কিন্তু জমি লিখে নেওয়ার পর থেকে ছোট ছেলে সাইফুলও মায়ের সেবা-যত্নে অবহেলা করতে থাকে। তিন বেলার মধ্যে এক বেলা খাবার দেয়। কখনো হাজেরা বেগম ক্ষুধায় কাতরালেও খাবার না দিয়ে উল্টো বকাঝকা ও মারধর করত ছেলে সাইফুল ও তার স্ত্রী। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে সালিশ হলেও ছেলেদের মনোভাবের কোনো পরিবর্তন হয়নি।

জানা যায়, গেল বছরের মে মাসে বৃদ্ধা হাজেরা বেগম ভাতের জন্য কান্নাকাটি শুরু করলে ছোট ছেলে সাইফুল ক্ষিপ্ত হয়ে বৃদ্ধা মা হাজেরা বেগমকে বাড়ির সামনে রাস্তায় ফেলে আসে। এভাবে টানা তিন দিন হাজেরা বেগম রাস্তায় পড়ে থাকে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে গফরগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। বিষয়টি নিয়ে ওই সময় দৈনিক অধিকারসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হলে গফরগাঁও থানার তৎকালীন ওসি আব্দুল আহাদ খান ছেলেদের আটক করে। পরে ছেলেরা পুলিশের কাছে মুচলেকা দিয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে হাজেরা বেগমকে বাড়ি নিয়ে যান।

এরপর সবশেষ হাজেরা বেগমের আশ্রয় হয় বড় ছেলে আব্দুস সাত্তারের বাড়িতে। কিন্তু নিষ্ঠুর ছেলে রবিবার (১১ জানুয়ারি) সকালে এ কনকনে শীতে বৃদ্ধা মাকে ঘরে থেকে বের করে গোয়ালঘরে গরুর সঙ্গে মেঝেতে খড় বিছিয়ে থাকার ব্যবস্থা করে। এ ঘটনা দেখে স্থানীয় যুবক কাউসার খান ঘটনার প্রতিবাদ করলে আব্দুস সাত্তার উল্টো গরু চুরির অপবাদ দিয়ে অপমান করে তাড়িয়ে দেয়।

কাউসার খান বলেন, এ বিষয়ে ছেলে আব্দুস সাত্তারকে জিজ্ঞাসা করতেই সে আমার প্রতি ক্ষিপ্ত হয়। সে বলে ‘আমার মাকে যেখানে খুশি রাখব, তাতে তোর কী।’ এরপর আমাকে উল্টো গরু চুরির অপবাদ দিয়ে অপমান করে।

আরও পড়ুন: রাস্তায় ঝরল মায়ের প্রাণ, ২ সন্তান হাসপাতালে

পরে বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য মুখলেছুর রহমান খোকাকে জানালে তিনি জিজ্ঞাসা করলে, আব্দুস সাত্তার ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। 

এ ব্যাপারে গফরগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অনুকূল সরকার বলেন, ‘ঘটনার খবর পেয়ে এসআই নাজিম উদ্দিনকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছি। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ওডি/এসএএফ 

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড