• শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ১৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

৬ লাখ টাকা জরিমানা গুণল দুই ইটভাটা

  সোনারগাঁ প্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ

০৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ২২:৩৬
ভ্রাম্যমাণ আদালত
ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানকালে তৈরিকৃত কাঁচা ইট পানি দিয়ে ধ্বংস করা হচ্ছে (ছবি : দৈনিক অধিকার)

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলাধীন বন্দর এলাকায় অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা দুইটি ইটভাটাকে ছয় লাখ টাকা জরিমানা করেছেন পরিবেশ অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে ইটভাটা দুইটি গুঁড়িয়ে দিয়ে সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (৪ ডিসেম্বর) বিকালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের এই অভিযান পরিচালনা করেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নূর-এ-আলম। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- নারায়ণগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. সাঈদ আনোয়ার, পরিদর্শক মইনুল হক ও আব্দুল গফুর প্রমুখ।

অভিযান প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. সাঈদ আনোয়ার দৈনিক অধিকারকে জানান, পরিবেশ অধিদপ্তর ও জেলা প্রশাসনের অনুমোদন ছাড়াই উপজেলার দাসেরগাঁও ও লক্ষণখোলা এলাকায় ‘মা বাবার দোয়া ব্রিকস’ এবং ‘হোম ব্রিবস ম্যানুফ্যাকচারিং’ নামে ওই ইটভাটা দুইটি পরিচালিত হয়ে আসছিল। ইটভাটা দুইটি পরিচালনার আইনগত কোনো বৈধতা ছিল না। পাশাপাশি ইটভাটা দুইটির মধ্যে একটি সিটি করপোরেশন এলাকায় এবং অন্যটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে গড়ে উঠেছিল। যা ইটভাটা স্থাপন আইনেরও পরিপন্থি। ফলে বুধবার ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ২০১৩ সালের ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন নিয়ন্ত্রণ আইনে ভাটা দুইটিকে তিন লাখ করে মোট ছয় লাখ টাকা জরিমানা করে।

পরবর্তীকালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে সার্বিক সহায়তার লক্ষ্যে অংশ নেওয়া জেলা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ওই ইটভাটা দুইটির তৈরি ও কাঁচা ইট ধ্বংস করে ভাটাগুলোকে বন্ধ করে দেওয়া হয়।

ওডি/আইএইচএন

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড