• রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ, আদালতে মামলা

  সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৯:২১
আদালত
আদালত (ছবি : ফাইল ফটো)

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে এক কলেজছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ওই কলেজছাত্রী বাদী হয়ে সিরাজগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল-২-এ মামলা দায়ের করেছেন। 

অভিযোগটি তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য কামারখন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে আদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে নিজ বাড়িতে গণমাধ্যমকর্মীদের এ কথা জানান ভুক্তভোগী ওই কলেজছাত্রী। 

মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী নিজ বাড়ি থেকে নিয়মিত কলেজে যাতায়াত করত। এ অবস্থায় কামারখন্দ উপজেলার জামতৈল গ্রামের রফিকুল আলমের ছেলে বখাটে নাঈম ওই কলেজছাত্রীকে যাতায়াতের পথে বিভিন্ন সময় উত্ত্যক্ত করে আসছিল। কলেজছাত্রীকে প্রেম নিবেদনসহ নানা কুপ্রস্তাব দিত। নাঈমের কুপ্রস্তাবে ওই কলেজছাত্রী রাজি না হওয়ায় তার ক্ষতি করার চেষ্টা করে বখাটে নাঈম। 

ঘটনার ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের ১১ নভেম্বর রাতে ব্যক্তিগত কাজে কলেজছাত্রী ঘর থেকে বের হয়। সেখানে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা বখাটে নাঈম কলেজছাত্রীকে ধারালো অস্ত্রের মুখে ঘরে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। 

এ সময় তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থলে ছুটে এসে বখাটে নাঈমকে আটক করে। খবর পেয়ে নাঈমের পরিবার বিচারের কথা বলে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে বিচার না হওয়ায় কলেজছাত্রী কামারখন্দ থানায় মামলা করতে গেলে থানার অফিসার ইনচার্জ মামলা গ্রহণ না করায় গত ২০ নভেম্বর তিনজনকে আসামি করে আদালতে মামলা দায়ের করেন। 

মামলাটি তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিল করতে কামারখন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। 

এ দিকে কলেজছাত্রীর মা তহুরা বেগম বলেন, আসামিরা প্রভাবশালী। এজন্য আমরা গ্রামে ন্যায় বিচার পায়নি। থানায় মামলা করতে গিয়েছিলাম থানা মামলা নেয়নি। বাধ্য হয়ে আদালতে মামলা দায়ের করেছি।

ভুক্তভোগী ওই কলেজছাত্রী বলেন, বখাটে নাঈম ও তার বাবা রফিকুল আলম এলাকায় প্রভাবশালী। ধর্ষণের ঘটনায় আমরা যেন মামলা করতে না পারি এজন্য তিনি সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন। থানায় মামলা করতে গিয়েছিলাম মামলা নেয়নি। এটি আমরা মামলার অভিযোগে উল্লেখ করেছি। এজন্য আদালতে মামলা করতে দেরি হয়েছে। আদালতে মামলা দায়েরের পর আমি ও আমার মা সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বিষয়টি অবগত করেছি।

কামারখন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুল ইসলাম জানান, কলেজছাত্রীর অভিযোগ সত্য নয়। তারাই মামলা করতে এসে আপসের কথা বলেছে। মামলা গ্রহণ না করার কোনো কারণ নেই। মামলা করলে অবশ্যই গ্রহণ করা হবে। 

ওডি/এএসএল

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড