• রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নামেই মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৯ বছর বেতন বিহীন শিক্ষকরা

  নওগাঁ প্রতিনিধি

০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৯:০৭
কুজাইল মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়
কুজাইল মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় (ছবি : দৈনিক অধিকার)

নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার কুজাইল মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ছয় শিক্ষক-কর্মচারী দীর্ঘ ১৯ বছর বেতন পান না। এমপিওর সকল শর্ত পূরণ করার পরেও এমপিওভুক্তির তালিকায় স্থান না পাওয়ায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন বিদ্যালয়টির শিক্ষক-কর্মচারীরা। 

বিদ্যালয়টিতে গত ২০১৬, ২০১৭ ও ২০১৮ সালে এসএসসি পরীক্ষায় শতভাগ পাস করে। এরপর থেকে বিদ্যালয়টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে উত্তীর্ণ ও এমপিওভুক্তির জন্য সব শর্ত পূরণ করলেও চলতি বছরে ঘোষিত এমপিওভুক্তির তালিকায় স্থান পাবে- এমনটি আশা করেছিলেন সংশ্লিষ্টরা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তালিকায় স্থান না পাওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েন বিদ্যালয়টির শিক্ষক-কর্মচারীরা। 

এ অবস্থায় ওই বিদ্যালয়টির মাধ্যমিক শাখার চারজন শিক্ষক, একজন নৈশ্যপ্রহরী ও একজন লাইব্রেরিয়ান প্রায় ১৯ বছর ধরে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অনেকে শিক্ষকতার পাশাপাশি হালচাষ এবং টিউশনি করে স্ত্রী/সন্তান নিয়ে কোনো রকমে জীবনযাপন করছেন। 

জানা গেছে, জেলার রাণীনগর উপজেলার কুজাইল এলাকায় নারী শিক্ষার আলো ছড়াতে ১৯৯৫ সালে ‘কুজাইল বালিকা বিদ্যালয়’ নামে একটি বিদ্যালয় স্থাপন করেন স্থানীয় গণ্যমান্য ও সচেতন ব্যক্তিরা। এরপর শিক্ষার্থী ভর্তি করে বিদ্যালয়টি চালু করা হয়। বিদ্যালয়ে পড়ালেখার মান অনুসারে এবং যোগ্যতা বলে গত ১৯৯৯ সালে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্বীকৃতি পায় এবং ২০০০ সালে নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় এমপিওভুক্তির তালিকায় স্থান পান। এরপর গত ২০০৪ সালে নিজস্ব পরীক্ষা ব্যবস্থা চালু হয়। শিক্ষকরা বলছেন, বর্তমানে বিদ্যালয়ে প্রায় ২৫৭ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। 

বিদ্যালয়ের নবম ও দশম শ্রেণির অবৈতনিক শিক্ষক-কর্মচারীরা জানান, শূন্যপদে চাকরিতে যোগদান করার পর থেকে বিনা বেতনে প্রায় ১৯টি বছর শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন। 

তারা আক্ষেপ করে বলেন, বছর জুড়ে কোনো ঈদ কিংবা কোনো উৎসব আসলে অন্য শিক্ষকরা বেতন-বোনাস পেয়ে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে উৎসব পালন করে। কিন্তু আমাদের কোনো উৎসব নেই। এ অবস্থায় টিউশনি ও কৃষি কাজ করে যেটুকু টাকা রোজগার করতে হয়। এতে যা আয় হয় তা দিয়ে সন্তানদের পড়ালেখা এবং সংসার পরিচালনা করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। তারা উক্ত বিদ্যালয়টি নজরে নিয়ে দ্রুত এমপিওভুক্ত করার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাব্বেল হোসেন জানান, বিদ্যালয়ের ছয়জন শিক্ষক-কর্মচারী দীর্ঘ দিন ধরে বিনা বেতনে চাকরি করছেন। বিদ্যালয়টিতে পড়া-লেখার মান এবং স্বীকৃতির ভিত্তিতে এ বছর এমপিওভুক্তির তালিকায় স্থান পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তা হলো না। বিদ্যালয়টির প্রতি সুদৃষ্টি দিয়ে এমপিওভুক্ত করতে সরকারের প্রতি দাবি জানান তিনি।

রাণীনগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল জলিল শিক্ষক-কর্মচারীদের মানবেতর জীবনযাপনের কথা স্বীকার করে বলেন, বিদ্যালয়ে লেখা পড়ার মান ভালো রয়েছে। আশা করছি আগামীতে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত হবে।

ওডি/ এফইউ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড