• বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

‘আমার বাড়ি গোপালগঞ্জ, মারেন সমস্যা নাই’

  নড়াইল প্রতিনিধি

০৯ নভেম্বর ২০১৯, ২২:১৫
শিহাব মল্লিক
নির্যাতিত ব্যবসায়ী শিহাব মল্লিক (ছবি : দৈনিক অধিকার)

নড়াইলের লোহাগড়া থানায় শিহাব মল্লিক (২৭) নামে এক ব্যবসায়ীকে নির্মম নির্যাতনের অভিযোগ তদন্ত করছে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা।

জানা যায়, মামলার তদন্ত কর্মকর্তার নেতৃত্বে বাদী ও তার ভাই মিলে ব্যবসায়ী শিহাবকে লোহাগড়া থানা ভবনের দোতলায় হাতকড়া পরিয়ে চোখ বেঁধে নির্যাতন করা হয়। এরপর নির্যাতনের সংবাদ গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর নড়াইল পুলিশ সুপার জসীম উদ্দিনের নির্দেশে তদন্তের কাজ শুরু হয়। 

শনিবার (৯ নভেম্বর) বিকাল ৫টার দিকে নড়াইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ ইমরানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ লোহাগড়া হাসপাতালে গিয়ে অভিযোগকারী ব্যবসায়ী শিহাব মল্লিকের সঙ্গে কথা বলেন। এর আগে গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা নির্যাতিত শিহাবের সঙ্গে  কথা বলেন।

এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ ইমরান জানান, ‘হাসপাতালে গিয়ে শিহাবের সঙ্গে কথা বলেছি। দফায় দফায় প্রশ্ন করেছি। সে যেসব অভিযোগ করেছে তার ভিডিও ফুটেজ বা প্রমাণ এখনো পাইনি। বিষয়টি আমরা সিনিয়র অফিসাররা তদন্ত করছি। এখন বিস্তারিত বলা যাচ্ছে না। তদন্ত চলছে।

অভিযোগকারী ব্যবসায়ী শিহাব শনিবার রাতে গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, ‘পুলিশ ৩ নভেম্বর রাত ৮টায় আমাকে গ্রেফতার করে। ৪ নভেম্বর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে থানা ভবনের দোতলায় নির্জন কক্ষে নিয়ে এসআই  নুর আলম সিদ্দিক ও বাদী মনিরুল মল্লিক এবং তার ভাই খায়রুল মল্লিক আমার হাত পেছনে রেখে হাতকড়া পরিয়ে চোখ বেঁধে লাঠি দিয়ে আধা ঘণ্টা মারধর করে। এরপরে দুপুর ১২টার দিকে আমাকে আদালতে পাঠায়। আমি থানায় ৩ নভেম্বর রাতে মাদক মামলার আসামি পাচুড়িয়া গ্রামের ইউসুফের সঙ্গে এক রুমে ছিলাম। পুলিশ ৪ নভেম্বর সকালে মাদক মামলার আরেক আসামি কবিরকে নিয়ে আসে। ইউসুফ ও কবির নির্যাতনের ঘটনা জানে। আমি থানা গারদে নির্যাতনের কথা ভয়ে বড় অফিসারদের বলিনি। কিন্তু ছোট অফিসার বা পুলিশদের তো বলেছিলাম।’ 

শিহাব আরও জানায়, ‘শনিবার পুলিশের বড় অফিসার হাসপাতালে এসে আমার কাছে নির্যাতনের ঘটনা বারবার শুনেছেন। আমি বারবারই একই উত্তর দিয়েছি। আমি বলেছি স্যার আমি মিথ্যা বললে আমাকে গ্রেফতার করেন আপত্তি নেই। তবে, সত্যি সত্যিই আমাকে নির্যাতন করা হয়েছে। আমি ন্যায় বিচার চাই।’

নির্যাতিত শিহাব জানায়, ‘আমাকে মারতে মারতে যখন দারোগা থেমে গিয়েছিল তখন বাদী ও তার ভাই আরও মারতে দারোগাকে বলছিল। তখন দারোগা তাদের দুই ভাইকে বলেছিল বেশি মারলে সমস্যা হতে পারে। তখন খায়রুল মল্লিক বলেন, আমার বাড়ি গোপালগঞ্জ মারেন সমস্যা নাই, আমি দেখবানি।’

উপজেলার গোপীনাথপুর গ্রামের এনামুল মল্লিকের ছেলে লোহাগড়া বাজারের টিভি-ফ্রিজ ব্যবসায়ী শিহাব মল্লিককে পুলিশ, বাদী ও তার ভাই থানা ভবনে নির্যাতন করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনের শিকার শিহাব মল্লিক বর্তমানে লোহাগড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

ওডি/এসএএফ 

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড