• মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পটিয়ায় তুচ্ছ ঘটনায় নারীসহ ১১ জনকে কুপিয়ে জখম

  পটিয়া প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম

০৯ নভেম্বর ২০১৯, ২০:১৪
হাসপাতাল
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (ছবি : সংগৃহীত)

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার কচুয়াই ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের কালা মসজিদ এলাকায় সংঘর্ষে নারীসহ ১১ জনকে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করা হয়েছে।

শনিবার (৯ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এ হামলার ঘটনা ঘটে। সিএনজিচালক নুরুন্নবী প্রকাশ ওরফে বেট্টাকে একই এলাকার হাবিবুর রহমান ওরফে নাগুর পরিবারের লোকজনের মারধরকে কেন্দ্র করে গ্রামবাসীর মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে গেলেও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

সংঘর্ষে আহতরা হলো- শহীদুল ইসলামের স্ত্রী তানিয়া আকতার (২৫), ছামিউল্লাহর ছেলে গাড়িচালক নুরুন্নবী (৪৫), মো. ওসমানের ছেলে মো. সাহেদ (২৭), মিয়া ফকিরের ছেলে আমানত উল্লাহ বাচা (৩২), আবু তালেবের ছেলে তৌহিদুল ইসলাম (২৮), জাফর উল্লাহর ছেলে আতাউল্লাহ (২৬), ফজল করিমের ছেলে আবদুর রহমান (১৬), নুরুল হকের ছেলে মোহাম্মদ মোরশেদ (৩২), দিদারুল ইসলামের ছেলে মো. রায়হান (১৫), মো. ছৈয়দের ছেলে সোলেমান (৪৫) ও মো. নুরুন্নবীর ছেলে মো. সোহেল (২৭)। আহতদের উদ্ধারের পর পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে সেখান থেকে তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো মুহূর্তে পুনরায় মারামারির আশঙ্কা রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার কচুয়াই ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের সিএনজিচালক চালক নুরুন্নবী শনিবার সকালে গাড়ি নিয়ে যাওয়ার সময় সিএনজিটি রাস্তার পাশে থাকা ইটের স্তূপের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এ সময় বাকবিতণ্ডার মধ্যে সিএনজিচালক নুরুন্নবীকে মারধর করে ওই এলাকার হাবিবুর রহমান, সোলেমান, রহিম, ফোরকানসহ বেশ কয়েকজন।

এক পর্যায়ে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গ্রামবাসীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এই ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার মধ্যেই ধারালো দা ও কিরিচ (দেশীয় অস্ত্র) দিয়ে কুপিয়ে ১১ জনকে গুরুতর জখম করা হয়। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা তাদের চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

৪ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. আনোয়ার হোসেন জানিয়েছেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গ্রামের দুই পক্ষের মধ্যে এই মারামারির ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে পটিয়া থানার ওসি বোরহান উদ্দিন দৈনিক অধিকারকে জানান, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে গেলেও কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

ওডি/আইএইচএন

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড