• সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৬ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ক্যারিয়ার গঠনে নতুন দিগন্ত ‘ডিজিটাল মার্কেটিং’

  ক্যারিয়ার ডেস্ক

০২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৫:৪৯
মো: সাফায়াত আলী চয়ন
ছবি : মো: সাফায়াত আলী চয়ন

পৃথিবীজুড়ে বাণিজ্য এবং তা প্রমোশনের জন্যে মার্কেটিং মাধ্যমটি প্রতিদিনই বিবর্ধিত হচ্ছে। সবকিছুই এখন আরও পরিষ্কার, নির্ভুল নিরীক্ষণের অনুশীলন চলছে মার্কেটিংয়ের নানান শাখায়। সেই প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে পৃথিবীজুড়ে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের ব্যবহার এখন তুঙ্গে। স্বভাবতই প্রথম যে প্রশ্নটা মাথায় আসে, সেটা হলো ডিজিটাল স্পেসে মার্কেটিং নিয়ে কেন এত আলোচনা? উত্তর সহজ- ডিজিটাল দুনিয়াতে সবকিছুই ট্র্যাকেবল (trackable)।

আগামী দিনের ব্যবসায়-বাণিজ্য পরিপূর্ণরূপে ভার্চুয়াল প্রমোশনমুখী হয়ে ওঠার ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে; কারণ প্রমোশনের বিনিময়ে ব্যবসায়িক প্রাপ্তিটা যথোপযুক্ত হয়। আর এই কারণেই ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের নানান শাখায় নতুন নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে। অনেকেই ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে ক্যারিয়ার গড়ার লক্ষ্য নিয়ে বাস্তবমুখী দক্ষতা উন্নয়নের দিকে নজর দিচ্ছেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং স্পেশালিস্ট মো: সাফায়াত আলী চয়ন কাজ করছেন অ্যাসোসিয়েশন অব সার্টিফাইড চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস (এসিসিএ) বাংলাদেশ এর সিনিয়র বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার হিসেবে। পেশাগত জায়গা থেকে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে ক্যারিয়ার গঠনের সুযোগ কেমন সে বিষয়ে আলোচনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘মার্কেটিং অনেক বড় একটা ক্ষেত্র। প্ল্যানিং থেকে শুরু করে বিক্রয়, বিপণন এবং ব্র্যান্ডিং পর্যন্ত সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটিই এর অন্তর্ভুক্ত। ফলে এখানে কাজের সুযোগ বরাবরই অনেক প্রশস্ত। এখনকার প্রযুক্তিবেষ্টিত সমাজ জীবনে ডিজিটাল মার্কেটিং সনাতন বিজ্ঞাপন ব্যবস্থার মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে।’

তার মতে, ‘আগেকার দিনে কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বিজ্ঞাপন খাতে অর্থ ব্যয় করলে তার পক্ষে প্রকৃত সুফল নির্ণয় করা কঠিন হতো। কিন্তু এখন ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জয় জয়কারের এ সময়ে এসে বিজ্ঞাপনের ফলাফল তাৎক্ষণিকভাবে নির্ণয় করে ফেলা সম্ভব। এমনকি প্রতিষ্ঠান তার পণ্যের মার্কেট ফিডব্যাকও অতি সহজেই জেনে নিতে পারছে। তাই ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলো ডিজিটাল মার্কেটিংকে অপেক্ষাকৃত নিরাপদ বিনিয়োগ বলে মনে করছে। ফলে এ ক্ষেত্রে কর্মসংস্থানের সুযোগও বিস্তৃত হচ্ছে।’

আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ-এ বিবিএ (মার্কেটিং মেজর) অধ্যয়নকালীন অবস্থায় গ্রামীণফোনের খন্ডকালীন কার্যনির্বাহী হিসেবে তিনি ক্যারিয়ার শুরু করেন। পরবর্তীতে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ (অপারেশনস ম্যানেজমেন্ট) করেন। এসিসিএ’র সাথে যুক্ত হবার আগে স্যামসাং ইন্ডিয়া ইলেকট্রনিক্স-এ প্রোডাক্ট ম্যানেজার, এখানেই ডটকমে ব্র্যান্ড ম্যানেজার ও ভেহিক্যাল ক্যাটাগরি হেড ছিলেন। করপোরেটে পুরো মাত্রায় বিচরণের পূর্বে বাংলাদেশের স্বনামধন্য বিজ্ঞাপনী সংস্থা গ্রে এবং এশিয়াটিকে ক্লায়েন্ট সার্ভিস, প্ল্যানিং এবং ডিজিটাল টিমে কাজ করেন।

এ সময়কালে তিনি এয়ারটেল, লাক্স, পেপসিকো, হরলিক্স বিস্কুট, সেনসোডাইন টুথপেস্ট, এখানেই ডটকম, মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতাল, গ্ল্যাক্সোস, ফ্রুটিকা, স্পিড, অক্সি, নেসক্যাফে, ম্যাগি, শেল, ফিনলে, সিসিমপুর, হিরো বাংলাদেশসহ ৩০টির অধিক ব্র্যান্ড নিয়ে কাজ করেছেন। একজন ডিজিটাল মার্কেটিং স্পেশালিস্ট হিসেবে তিনি মনে করেন, ‘কেবল অ্যাকাডেমিক কোয়ালিফিকেশনই এক্ষেত্রে বড় যোগ্যতা নয়। যেহেতু প্রতিদিনই পৃথিবীতে নতুন কিছু না কিছু সৃষ্টি হচ্ছে, প্রযুক্তির কোনো না কোনো ক্ষেত্রে উৎকর্ষ সাধিত হচ্ছে, এগুলোর সাথে সম্পৃক্ত থাকতে হবে। আইডিয়া তৈরি এবং সময়োপযোগী কৌশল নির্ধারণে সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে। প্রতিনিয়ত এভাবে শেখার মধ্যে দিয়ে যেতে না পারলে পিছিয়ে পড়তে হবে।’

অনেক অনেক কাজের সুযোগ থাকায় ক্যারিয়ার হিসেবে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের চাহিদা যেমন বাড়ছে, সেই সাথে তৈরি হচ্ছে নতুন নতুন চ্যালেঞ্জও। ‘এখানে ক্যারিয়ার গঠনের ক্ষেত্রে শুরুর দিকে সবচাইতে বড় যে চ্যালেঞ্জটির সম্মুখীন হতে হয়, সেটা হলো- শিখতে হয় প্রতিনিয়ত; কখনোই কারো পক্ষে বলা সম্ভব নয় যে সে সব জানে। পরিশ্রম যে কোনো প্রফেশনেই করতে হয় নিঃসন্দেহে, কিন্তু ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের দুনিয়াতে কখনো রাত হয় না।

আরও পড়ুন : বাংলাদেশের গর্ব সাইবার ইঞ্জিনিয়ার মর্তুজা আজম

ধৈর্য ধরে এই প্রফেশনে লেগে থাকতে হয়, যা কি-না অনেকেই করতে পারেন না। হাল ছেড়ে দেন। তাই ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে সফল ক্যারিয়ার তৈরি করতে হলে প্রচন্ড আত্মবিশ্বাসী এবং কাজের প্রতি দারুণ প্রতিশ্রুতিশীল হতে হবে। কেননা অনেক সময়ই এমন ঘটে যে হাতে হাতে ফলাফল পাওয়া যায় না, কিন্তু দীর্ঘমেয়াদে যে প্রাপ্তিটা ঘটে, সেটা হয় অত্যন্ত চমকপ্রদ।’ এমনটিই মনে করেন চয়ন।

আজকের দিনে যে কোনো ক্ষেত্রেই ক্যারিয়ার গঠনে সৃজনশীলতার পাশাপাশি প্রয়োজন তথ্য বিশ্লেষণের দক্ষতাও। ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জগতে এ কথা আরও বেশি যথার্থ। তাই মার্কেটিং বিষয়ে নিয়মিত পড়াশোনার সাথে সাথে নিজের দক্ষতা বৃদ্ধির দিকে নজর দেয়ার পরামর্শ এ বিপণন বিশেষজ্ঞের।

ওডি/এওয়াইআর ​​​​​​​

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড