• বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ১৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

জয়ে ফিরল সিলেট, হেরেই চলেছে রংপুর

লিটন দাস-সাব্বির রহমান
সাব্বির রহমান-লিটন দাস (ছবি : ইউএনবি)

লিটন দাস-ডেভিড ওয়ার্নারের হাফসেঞ্চুরিতে স্কোরবোর্ডে বড় সংগ্রহ জমা করেছিল সিলেট সিক্সার্স। শুরুতেই হোঁচট খাওয়া রংপুর রাইডার্স রাইলে রুশো ও মোহাম্মদ মিঠুনের ৮৯ রানের জুটিতে পায় লক্ষ্য তাড়া করে জয় ছিনিয়ে আনার ভিত। কিন্তু পরের ব্যাটারদের ধীরগতির ব্যাটিং আর শেষ ওভারগুলোতে সিলেটের কিপটে বোলিংয়ে তাদের থামতে হয় অনেক দূরে।

সিলেটে বিপিএলের বুধবারের দ্বিতীয় ম্যাচে রংপুর রাইডার্সকে ২৭ রানে হারিয়েছে স্বাগতিক সিলেট সিক্সার্স। টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে সিলেটের ৫ উইকেটে ১৮৭ রানের জবাবে রংপুর করেছে ৬ উইকেটে ১৬০ রান। আসরে পঞ্চম ম্যাচে এটি ওয়ার্নারের সিলেটের দ্বিতীয় জয়। টানা ২ হারের পর ঘরের মাঠের সমর্থকদের সামনে জয়ে ফিরল তারা। অন্যদিকে বর্তমান বিপিএল চ্যাম্পিয়ন মাশরাফি বিন মর্তুজার রংপুরের এটি টানা তৃতীয় হার। ৬ ম্যাচ খেলে কেবল ২টিতে জিতেছে তারা।

এ ম্যাচে জবাব দিতে নেমে দলীয় ১১ রানের মাথায় টপ অর্ডারের তিনজন ব্যাটসম্যানকেই হারায় রংপুর। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে বাঁহাতি পেসার মেহেদী হাসান রানার শিকার হন মেহেদী মারুফ ও অ্যালেক্স হেলস। এ ম্যাচের একাদশে সুযোগ পেলেও সেটাকে কাজে লাগাতে পারেননি এই দুই ব্যাটসম্যান। পরের ওভারে পাকিস্তানি তারকা সোহেল তানভীর বিদায় করেন ক্রিস গেইলকে। ফলে বিপিএলের এবারের আসরে খেলা চার ম্যাচের সবগুলোতেই ঝড় তুলতে ব্যর্থ হলেন টি-টুয়েন্টির এই ফেরিওয়ালা।

দ্রুত ৩ উইকেট হারানোর পরও দলের রানের চাকা সচল রাখেন রুশো ও মিঠুন। বিপিএলের চলমান আসরে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক রুশো ছিলেন বিধ্বংসী মেজাজে। ইনিংসের পঞ্চম ওভারে আফিফ হোসেনকে ২টি ছয় হাঁকিয়ে উইকেটে নিজের আগমনের বার্তা জানান দেন দক্ষিণ আফ্রিকার এই বাঁহাতি ব্যাটার। পরের ওভারের প্রথম ৩ বলে রানাকে টানা মারেন ১টি ছয় ও ২টি চার। তাতে পাওয়ার প্লের ৬ ওভার শেষে রংপুরের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩ উইকেটে ৬২ রান।

১১তম ওভারে আসরের তৃতীয় হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন রুশো। মাত্র ২৭ বলে। অন্য প্রান্তে মিঠুনও দারুণ সঙ্গ দিতে থাকেন তাকে। তাতে সিলেটের দেওয়া চ্যালেঞ্জ টপকে জয়ের স্বপ্ন দেখতে থাকে রংপুর। কিন্তু দ্বিতীয় স্পেলে ফিরেই তোপ দাগেন তাসকিন আহমেদ। ব্যক্তিগত পরপর ২ ওভারে তুলে নেন উইকেটে থিতু হয়ে যাওয়া রুশো ও মিঠুনকে। ১৭ রানের ব্যবধানে তাদের বিদায়ের পর লড়াই থেকে ছিটকে যাওয়া রংপুর কেবল হারের ব্যবধানই কমাতে পেরেছে।

১২তম ওভারে রংপুরের দলীয় ১০০ রানে রুশোকে বোল্ড করেন এবারের বিপিএলে দারুণ ফর্মে থাকা তাসকিন। রুশোর ব্যাট থেকে আসে ইনিংস সর্বোচ্চ ৫৮ রান। ৩২ বলের ইনিংসে ৩টি চার ও ৪টি ছয় মারেন তিনি। এরপর ১৪তম ওভারে সাব্বির রহমানের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন মিঠুন। ২৯ বলে ৫ চারে ৩৫ রান করেন এই ডানহাতি তারকা।

শেষ ৬ ওভারে জয়ের জন্য রংপুরের দরকার ছিল ৭১ রান। কিন্তু ঝড় তুলতে পারেননি মাশরাফি, বেনি হাওয়েল ও নাহিদুল ইসলামরা। এ সময়ে কেবল ১টি উইকেট তুলে নিতে পেরেছেন সিলেটের বোলাররা। কিন্তু নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে রংপুরের রানের চাকা ঠিকই তারা আটকে রেখেছিলেন। ফলে ১৬-২০ ওভারে মাত্র ৪৩ রান যোগ করতে পেরেছে রংপুর।

১১ বলে ১৩ রান করা হাওয়েলকে বোল্ড করেন সন্দীপ লামিচানে। এই নেপালি লেগ স্পিনার ৪ ওভারের স্পেলে খরচ করেন মোটে ১৮ রান। তানভীর ১ উইকেট পান ২২ রানে। রানা ৪০ ও তাসকিন ৩৪ রানের বিনিময়ে ২টি করে উইকেট তুলে নেন। ছয়ে নেমে দুবার জীবন পাওয়া মাশরাফি ২৭ বলে ৩৩ ও নাহিদুল ৬ বলে ৫ রানে অপরাজিত থাকেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড