• শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি ২০২০, ১০ মাঘ ১৪২৬  |   ১৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

চট্টগ্রাম বনাম রাজশাহী; কার শক্তি কোথায়

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

১৫ জানুয়ারি ২০২০, ১৬:৫৩
দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে মুখোমুখি চট্টগ্রাম ও রাজশাহী
দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে মুখোমুখি চট্টগ্রাম ও রাজশাহী (ছবি : সংগৃহীত)

খুলনা টাইগার্স অপেক্ষা করছে ফাইনালে নিজেদের প্রতিপক্ষের জন্য, এ দিকে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জাস ও রাজশাহী রয়্যালস প্রস্তুত নিজেদের মধ্যে যুদ্ধটা সেরে নিতে। এ যুদ্ধে যে জিতবে সেই তো হবে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের দ্বিতীয় ফাইনালিস্ট। দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার বুধবার (১৫ জানুয়ারি) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় অনুষ্ঠিত হবে। গাজী টিভি ও মাছরাঙায় সরাসরি দেখা যাবে চট্টগ্রাম এবং রাজশাহীর লড়াই।

মাঠের লড়াইয়ে এর আগেও দুইবার মুখোমুখি হয়েছে দুই দল। দল দুটি এক জয়ের বিপরীতে হেরেছে একটি করে। টুর্নামেন্টের ৩৬তম প্রথম মুখোমুখি হয় চট্টগ্রাম-রাজশাহী। সে ম্যাচে আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৬৬ রান তুলে রয়্যালস। ৫৬ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন রাজশাহীর ওপেনার লিটন দাস।

১৬৭ রানের কঠিন লক্ষ্যকে সহজেই টপকে যায় চট্টগ্রাম। ১৮.৩ ওভারে ৭ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বন্দর নগরীর দলটি। চট্টগ্রামের পক্ষে এদিন ব্যাট হাতে ঝড় তুলেন সিমন্স ও ইমরুল কায়েস। সিমন্স ৪৩ বলে ৫১ আর ইমরুল কায়েস ৪১ বলে ৬৭ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন।

দ্বিতীয় সাক্ষাতে ভালোভাবেই প্রতিশোধ তোলে রাজশাহী। টুর্নামেন্টের ৪১তম ম্যাচে চট্টগ্রামকে রাজশাহী হারায় ৮ উইকেটে। প্রথমে ব্যাট করে চট্টগ্রাম নির্ধারিত ওভারে ৫ উইকেটে ১৫৫ রান করে। এদিন অবশ্য চট্টগ্রামের একাদশে অধিনায়ক মাহমুদউল্লার পাশাপাশি ছিলেন ক্রিস গেইলও। 

১৫৬ রানের সহজ লক্ষ্য সহজ করে তুলে রাজশাহীর দুই ওপেনার লিটন ও আফিফ। ৪৮ বলে ৭৫ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন লিটন দাস। লিটনের সঙ্গে ৩২ রানের ইনিংস খেলে দলের জয়ে দারুণ অবদান রাখেন আফিফ। এরপর শোয়েব মালিকের অপরাজিত ৪৩ রয়্যালসের জয় নিশ্চিত করে দেয়।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স : 

চলমান বঙ্গবন্ধু বিপিএলের ধারাবাহিক দল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। ১২ ম্যাচের মধ্যে আট জয়ে সবার আগে কোয়ালিফায়ার নিশ্চিত করে দলটি। চট্টগ্রামের ব্যাটিং লাইনে রয়েছে টি-টুয়েন্টির রাজা হিসেবে খ্যাত ক্রিস গেইল। এবারের বিপিএলে এখনো নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে না পারলেও গেইল যে কোনো দলের জন্য হুমকি। নিজের দিনে অন্য কাউকে সুযোগ দেন না এই তারকা ব্যাটসম্যান। 

ব্যাট হাতে চট্টগ্রামের হয়ে ধারাবাহিক খেলে যাচ্ছেন ইমরুল কায়েস। তিনি এখন চতুর্থ সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী। ১২ ম্যাচে ইমরুলের ব্যাট থেকে এসেছে ৪৩৭ রান। অর্ধশতক পেয়েছেন চারটি। সর্বোচ্চ ইনিংস ছিল ৬৭ রানের। ইমরুলের পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে ব্যাটিং এভারেজ ৫৪.৬২ আর স্ট্রাইকরেট ১৩৩.৬৩।

এছাড়াও চট্টগ্রামের হয়ে ব্যাট হাতে ঝড় তুলতে পারেন দলটির অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ, জিয়াউর রহমান ও চ্যাডউইক ওয়ালটন। এছাড়া নুরুল হাসানও সুযোগ পেলেই ধারাবাহিক খেলে যাচ্ছেন।

বল হাতেও সফল চট্টগ্রামের বোলাররা। জাতীয় দলের পেসার রুবেল হোসেন ও তরুণ পেসার মেহেদী হাসান রানা তো শীর্ষ ১০ উইকেট শিকারির মধ্যে নিজেদের নাম পাকাপোক্ত করে রেখেছেন। রুবেল ১২ ম্যাচে ১৮ উইকেট নিয়ে রয়েছেন তালিকার চতুর্থ স্থানে। আজ তিন উইকেট পেলেই টপকে যাবেন শীর্ষে থাকা মুস্তাফিজুর রহমানকে।

এছাড়া তরুণ পেসার মেহেদী হাসান রানা টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই আলো ছড়াচ্ছেন। মেহেদী মাত্র ৯ ম্যাচ খেলে শিকার করেছেন ১৭ উইকেট। কম ম্যাচ খেলে অন্যদের থেকে উইকেটের দিক থেকে অনেক এগিয়ে এই তরুণ। সেরা দশের মধ্যে মেহেদীর অবস্থান ষষ্ঠ। 

রাজশাহী রয়্যালস :

চলমান বঙ্গবন্ধু বিপিএলের সবচেয়ে সফল ওপেনিং জুটি রাজশাহী রয়্যালসের। রাজশাহীর দুই ওপেনার লিটন দাস ও আফিফ হোসেন ম্যাচের শুরুতেই দলের ভিত গড়ে দিয়ে যান। সেরা ১০ ব্যাটসম্যানের মধ্যে এখন পর্যন্ত তিন জনই রাজশাহীর। দলটির পাকিস্তান অলরাউন্ডার শোয়েব মালিক ১৩ ম্যাচে ৪৩২ রান করে রয়েছেন তালিকার পঞ্চম স্থানে। তারপরই ওপেনার লিটনের স্থান। সমান সংখ্যক ম্যাচে লিটনের সংগ্রহ ৪২৪। দুই জনেরই অর্ধশতক তিনটি করে।

তরুণ অলরাউন্ডার আফিফ হোসেনও খেলছেন দুর্দান্ত। ১৩ ম্যাচে আফিফের সংগ্রহ ৩৫৮, যা টুর্নামেন্টের নবম সর্বোচ্চ। এছাড়াও অধিনায়ক রাসেল, বোপারা, অলক কাপালি হতে পারে চট্টগ্রামের জন্য বিপদজনক ব্যাটসম্যান।

বল হাতে সবচেয়ে সফল রাজশাহীর তারকা পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। ১৩ ম্যাচে তার শিকার ২০। যা আসরে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ। টুর্নামেন্টের শুরু দিকে কিছুটা এলোমেলো হলেও এখন নিজের আগের ধারে ফিরেছেন মুস্তাফিজ। এছাড়াও মোহাম্মদ ইরফান, আবু জায়েদ রাহি ও কামরুল ইসলাম রাব্বি হয়ে উঠতে পারেন চট্টগ্রামের পরাজয়ের কারণ।

কাগজে কলমে ও শক্তির বিচারে দুই দল অনেকটাই সমান। তবে মাঠের লড়াই হলো আসল। যে আজ ভালো খেলতে পারবে সেই দলই হবে খুলনার ফাইনাল প্রতিপক্ষ। অপেক্ষা এবার দেখার। 

ওডি/এসএম

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড