• রোববার, ২৯ মার্চ ২০২০, ১৫ চৈত্র ১৪২৬  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বিতর্কিত নো বলে ফিক্সিংয়ের প্রমাণ পায়নি বিসিবি

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

২৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৬:৪২
বিতর্কিত নো বল
উইন্ডিজ বোলার সান্তোকির বিতর্কিত নো বল (ছবি : সংগৃহীত)

বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখী হয় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ও সিলেট থান্ডার। সে ম্যাচে সিলেট থান্ডারের ক্রিসমার সান্তোকি জন্ম দেন তুমুল বিতর্কের। ক্যারিবীয় এ বোলারের একই ওভারের দুটি ডেলিভারি নিয়ে কৌতূহল জন্মায় সকলের মনে। এমনকি তার বিরুদ্ধে ফিক্সিংয়ের অভিযোগও ওঠে।

মিরপুরে উদ্বোধনী ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে ১৬২ রান করে সিলেট থান্ডার। জবাবে ব্যাট করে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। দ্বিতীয় ওভারে বোলিংয়ে আসেন সান্তোকি। তার করা তৃতীয় ডেলিভারি লেগ স্ট্যাম্পের অনেক বাইরে দিয়ে চলে যায়। বাঁ প্রান্তে ঝাঁপিয়ে বলটি গ্লাভসবন্দি করেন উইকেটরক্ষক মোহাম্মদ মিঠুন। অনেক বড় এই ওয়াইড অবশ্য সবার নজরবন্দি হয়নি। কারণ ক্রিকেটে এমন ওয়াইড হতেই পারে। কিন্তু একই ওভারে সান্তোকির করা পঞ্চম ডেলিভারিটি কৌতূহল জাগিয়েছে। এটি করতে গিয়ে পপিং ক্রিজের এক ফুটেরও দূরে পা ফেলেন তিনি। যা স্মরণ করিয়ে দেয় ২০১০ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মোহাম্মদ আসিফ, মোহাম্মদ আমিরের করা নো বলের কথা। পরে জানা যায় সেবার স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িত ছিলেন বলেই ঐ রকম ডেলিভারি দিয়েছিলেন তারা। সান্তোকির ‘নো’ বলটা ছিল তার চেয়েও বড়। তাই সান্তোকির ক্ষেত্রেও ফিক্সিংয়ের ঘটনা জড়িত থাকতে পারে ভাবছে ক্রিকেটপ্রেমীরা।

শুধু সাধারণ মানুষই নন, খোদ বিসিবি পরিচালক তানজিল চৌধুরীর মনেও জাগে সংশয়। বিষয়টি তদন্ত করে দেখার জন্য বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন চৌধুরী এবং সংস্থার দুর্নীতি দমন শাখার প্রধান হুমায়ুন মোর্শেদের কাছে মৌখিক অনুরোধও করেন তানজিল। এরপর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও বিষয়টি দুর্নীতি দমন শাখার ওপর ছেড়ে দেন। 

তবে তদন্তে সান্তোকির বিরুদ্ধে ফিক্সিংয়ের অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। এমনটাই জানিয়েছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন। তিনি বলেন, 'কোনো খেলোয়াড়ের বিষয়ে যৌক্তিক সন্দেহ হলে দুর্নীতি দমন শাখা তদন্ত করে। পত্রিকায় ও সামাজিক মাধ্যমে নানা লেখা দেখে তারা বিষয়টি অবশ্যই তদন্ত করেছে। সান্তোকির বিষয়ে তারা এ ধরনের গুরুত্বপূর্ণ কিছু পায়নি বলে আমাদের কাছে তথ্য আসেনি। যথেষ্ট সাক্ষ্যপ্রমাণ থাকলে সাধারণত আমাদের পর্যন্ত আসে। না থাকলে আসে না।'

ওডি/এমএমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড