• বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন

ব্রেকিং :

কিরগিজস্তান ২-১ গোলে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হারানোয় বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ নারী আন্তর্জাতিক ফুটবলের সেমিফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ||শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় নিহত শিশু জায়ান চৌধুরীর জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাব গৃহীত; সপ্রতি বিশিষ্টজনদের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়ে সংসদে এক মিনিট নিরবতা পালন||ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্ধিত বেতন ফি প্রত্যাহারের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি প্রশাসনের আশ্বাসে প্রত্যাহার করেছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা; সকালে আটক ২২ শিক্ষার্থীকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ||শ্রীলঙ্কায় ধর্মীয় অনুষ্ঠানে বোমা হামলা করে শিশু জায়ান চৌধুরীরসহ নিরপরাধ মানুষ হত্যাকারীরা মানবতার শত্রু : সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা; এ ধরনের ঘৃণ্য হামলার নিন্দা জানানোর ভাষা নেই||শিশু জায়ান চৌধুরীর জানাজা বনানী ক্লাব মাঠে অনুষ্ঠিত; দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে

সুরকার আলাউদ্দিন আলীর চিকিৎসায় ২৫ লাখ টাকা দিলেন প্রধানমন্ত্রী

  অধিকার ডেস্ক    ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৭:৩৩

আলাউদ্দিন আলীর স্ত্রী ফারজানা মিমি
আলাউদ্দিন আলীর স্ত্রী ফারজানা মিমির হাতে ২৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। (ছবি : সংগৃহীত)

বেশ কয়েক বছর ধরে রক্তচাপ ও ফুসফুসের সংক্রমণসহ একাধিক রোগে ভুগছেন আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী সঙ্গীত পরিচালক আলাউদ্দিন আলী। কিংবদন্তি এই সুরকার ও সংগীত পরিচালক আলাউদ্দিন আলীর চিকিৎসার জন্য ২৫ লাখ টাকা দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ রবিবার দুপুরে আলাউদ্দিন আলীর স্ত্রী ফারজানা মিমিকে গণভবনে ডেকে এনে তার হাতে ২৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত ২২ জানুয়ারি রাতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। সে সময় তাকে মহাখালীর আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে বলে জানান তার স্ত্রী ফারজানা মিমি।

প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞাতা জানিয়ে ফারজানা মিমি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আলাউদ্দিন আলীর চিকিৎসায় ২৫ লাখ টাকা সঞ্চয়পত্র হিসেবে দিয়েছেন।’

এ সঞ্চয়পত্র থেকে প্রতি মাসে একটা নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা আলাউদ্দিন আলীর চিকিৎসায় ব্যয় হবে বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, ১৯৬৮ সালে আলাউদ্দিন আলী যন্ত্রশিল্পী হিসেবে চলচ্চিত্র জগতে আসেন এবং আলতাফ মাহমুদের সহযোগী হিসেবে যোগ দেন। প্রয়াত আমজাদ হোসেনের 'গোলাপী এখন ট্রেনে' ছবির গানের জন্য আলাউদ্দীন আলী ১৯৭৯ সালে প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।

তার সুর করা কালজয়ী সেসব গানের মধ্যে উল্লেখযোগ্যগুলো হলো- প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ, একবার যদি কেউ ভালোবাসতো, আছেন আমার মোক্তার আছেন আমার ব্যারিস্টার, যে ছিল দৃষ্টির সীমানায়, ভালোবাসা যত বড়ো জীবন তত বড় নয়, দুঃখ ভালোবেসে প্রেমের খেলা খেলতে হয়, হয় যদি বদনাম হোক আরো ইত্যাদি ।

দীর্ঘদিনের ক্যারিয়ারে আলাউদ্দীন খান বাংলাদেশের সঙ্গীত ভুবনে উপহার দিয়েছেন অনেক কালজয়ী গান, যা আবহমানকাল ধরেই চলছে মানুষের মুখে মুখে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড